দশম কমনওয়েলথ নারী বিষয়ক মন্ত্রিসভা ও উদ্যোগ প্রদর্শনীতে এ্যাকটিভ সিটিজেনস

1‘উদ্যোগের জন্য নারী নেতৃত্ব’ এই শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে গত ১৫-১৭ জুন ২০১৩ ব্র্যাকের সিডিএম মিলনায়তনে কমনওয়েলথভুক্ত ১৭টি দেশের প্রায় শতাধিক বেসরকারি প্রতিনিধির সমন্বয়ে পার্টনার ফোরামের সভা ও দশম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, শান্তি, সামাজিক ন্যায়বিচার ও টেকসই উন্নয়নে নারীর অংশগ্রহণ, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ, নারী নেতৃত্বকে চালিকাশক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার ওপর গুরুত্বারোপ ও নারীর সার্বিক ক্ষমতায়নকে নতুন বিশ্ব 14উন্নয়ন এজেন্ডায় অন্তর্ভুক্ত এবং অ্যাডভোকেসি করার ওপর জোর দেয়া হয়। এছাড়াও কমনওয়েলথভুক্ত সদস্যদেশগুলোর শিল্প ও ব্যবসা-বাণিজ্যে নারী নেতৃত্ব গড়ে তোলার লক্ষ্যে করণীয় নির্ধারণেও নানাদিক নিয়ে আলোকপাত করা হয়। প্রসঙ্গত, এই সম্মেলনটি তিন বছর পরপর অনুষ্ঠিত হয়। এতে নাগরিক সমাজ, তরুণ উদ্যোক্তা, নারী উদ্যোক্তা (ব্যক্তিগত/কর্পোরেট সেক্টর),গবেষক, দাতা সংস্থা, সরকারের প্রতিনিধি, উন্নয়নকর্মী অংশগ্রহণ করেন। সম্মেলন অঙ্গনে নারী ও তরুণ উদ্যোক্তাদের আয়মূখী নানা উদ্যেগ প্রর্দশিত হয়। সম্মেলনের প্রথম দিনে অর্থাৎ ১৫ জুন ২০১৩ তারিখে এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডারদের ৩টি আয়মূখী উদ্যোগ প্রর্দশিত হয়। উদ্যোগগুলি যথাক্রমে ক) এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডারদের উদ্যোগে গড়ে ওঠা স্থানীয় সংগঠন সৃষ্টি এবং আত্ম-কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে পরিচালিত আয়মুখী নানা উদ্যোগ (লক্ষ্মীপুর); খ) আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের অন্যতম দিশারী পত্নীতলার কিশোরী ক্লাব 31(নওগা); এবং গ) সেলাই কার্যক্রমের মাধ্যমে সাফল্য অর্জন (খুলনা)। এতে লক্ষ্মীপুর থেকে শামছুন্নাহার সুমী ও মাইরীন মজুমদার, নওগা থেকে রোজিনা পারভীন ও মনিরা খাতুন, খুলনা থেকে  অম্বিকা সরকার তুলি ও ইশরাত জাহান সামাজিক উদ্যোগ প্রর্দশনীতে প্রতিনিধিত্ব করে। উদ্যোগ প্রর্দশনীর ক্ষেত্রে এ্যাকটিভ সিটিজেনসরা সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণের প্রেক্ষাপট ও লক্ষ্য-উদ্দেশ্য, কর্ম-কৌশল ও কর্মসূচী, উদ্যোগের বর্তমান অবস্থা, সফলতা, চ্যালেঞ্জ, উত্তোরনের উপায় এবং আগামীর ভাবনা তুলে ধরে। এসময় প্রর্দশনী স্টলে সামাজিক উদ্যোগের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য, কার্যক্রমের নানা ছবি, কমিউনিটি মানচিত্র, শ্লোগান সম্বলিত ফেষ্টুন, ওয়ান পেজার (এক নজরে সার্বিক চিত্র),এ্যাকটিভ সিটিজেনসদের নানা প্রকাশনা ও তৈরীকৃত উপকরণ ও ব্রুশিউর শোভা পায়। প্রর্দশনী ষ্টলে আগত দর্শনার্থীদের কাছে সামাজিক উদ্যোগগুলি ছিল নতুন অভিজ্ঞতা ও ভিন্নমাত্রার। 29কারণ, শিক্ষার্থীরা পড়ালেখার পাশাপাশি নিজেদের বিকাশ ও অবসর সময়ে কমিউনিটির উন্নয়নে অবদান রাখছে এবং সম্মিলিতভাবে আয়মূখী নানা উদ্যোগ গ্রহণ করছে। যেটা সত্যিই শিক্ষণীয় ও প্রসংশনীয়। প্রর্দশনীতে আসা দেশ-বিদেশের প্রতিনিধিরাও এ্যাকটিভ সিটিজেনসদের গৃহিত সামাজিক উদ্যোগগুলির ভূয়সী প্রসংশা করেন এবং তাদের সাফল্য কামনায় প্রতিটি স্টলের মন্তব্য খাতায় অনুভূতি ব্যক্ত করেন।

প্রর্দশনী শেষে অংশগ্রহণকারীরা এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডাররা তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, প্রর্দশনীতে তাদের অংশগ্রহণ নতুন উৎসাহ ও অভিজ্ঞতা সঞ্চয়, নিজেদের বিকাশ,সামাজিক উদ্যোগগুলি নিবিড়ভাবে এগিয়ে নেওয়া এবং সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচনের জন্য এটি অবশ্যই অনন্য সুযোগ। এজন্য তারা ব্রিটিশ কাউসিল ও দি হাঙ্গার প্রোজেক্ট-বাংলাদেশকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে।33

সম্মেললে ব্রিটিশ কাউসিলের পক্ষ থেকে হেড অফ পার্টনারশিপ এন্ড সোসাইটির জনাব সৈয়দ মাসুদ হোসাইন, পার্টনারশিপ এন্ড সোসাইটির প্রোজেক্ট ম্যানেজার মোহাম্মদ হেলাল হোসাইন অংশগ্রহণ করেন এবং এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডারদের সামাজিক উদ্যোগ প্রর্দশনী পরিদর্শন করেন। উদ্যোগ প্রদর্শনীতে সহায়ক হিসেবে ভূমিকা রাখেন ইয়ূথ মোবিলাইজেশন ইউনিটের সমন্বয়কারী অশোক বিশ্বাস । উল্লেখ্য, ফোরাম বাংলাদেশ ও কমনওয়েলথ সচিবালয় সরকারের সহযোগিতায় ব্র্যাক ও কমনওয়েলথ ফাউন্ডেশন অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে এটি অায়োজন এবং সার্বিক সমন্বয় করেন।
রিপোর্ট: অশোক বিশ্বাস

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s