বিভিন্ন প্রতিযোগিতা বিষয়ক সংবাদ

ইযূথ এন্ডিং হাঙ্গারের সদস্যরা সূচনালগ্ন থেকেই মেধা ও সৃজনশীতা বিকাশের লক্ষ্যে ইউনিট ভিত্তিক বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও নানা ইস্যুকে ঘিরে নানা ধরণের প্রতিযোগিতা আয়োজন করে থাকে। এ সকল প্রতিযোগিতার মধ্যে বির্তক, সাধারণ জ্ঞান কুইজ, চিত্রাঙ্কন, রচনা,বর্ণ লিখন, উপসি’ত বক্তৃতা প্রতিযোগিতা অন্যতম। অধিকাংশ ক্ষেত্রে ইউনিট সদস্যরা মাসিক চাঁদা অথবা স’ানীয় উদ্যোগে সংগৃহিত অর্থ দিয়ে বিজয়ীদের পুরস্কার ক্রয় এবং সার্বিক আয়োজন করেথাকে। অনেক সময় আয়োজনের ক্ষেত্রে ঢাকা অফিস থেকে প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন প্রকাশনা ও সনদপত্র প্রদান করে থাকে। গত জানুয়ারী  হতে মার্চ মাস পর্যন- সারাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ইউনিট সদস্যদের উদ্যোগ ও পরিচালানায় ১৪ টি মিটিং প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রেরিত প্রতবেদনগুরির মধ্য থেকে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি সংবাদ :

নাটোরের গুরুদাসপুরে বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার- সবুজ শ্যামল ইউনিটের উদ্যোগে গত ১৯ মার্চ ২০১২ নাটোর জেলা গুরুদাসপুর উপজেলার ৩ নং খুবজীপুর ইউনিয়নের চলনবিল মেধাবিকাশ পাঠাগার কেন্দ্রে ৩য় বারের মত জমজমাট এক বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল “অর্থ নয় ,উপযুক্ত পরিবেশই শিক্ষার উন্নয়নের পথে মূখ্য ভূমিকা পালন করে”। উক্ত প্রতিযোগিতায়  খুবজীপুর এম.হক ডিগ্রী কলেজের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে। এসময় উপসি’ত ছিলেন অত্র কলেজের অর্থনীতি বিভাগের মো: গোলাম মোসতফা, সাচিবিক বিদ্যা বিভাগের মো: আব্দুস সালাম, মো: রেদোয়ান সরকার, সমাজকল্যান বিভাগের প্রভাষক মো: বাবুল হোসেন এবং কলেজের অর্ধশত শিক্ষার্থী। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন দি হাঙ্গার প্রজেক্টের এলাকা সমন্বয়কারী মো: শামসুদ্দিন মিয়া।
রিপোর্ট : মো: শরিফুল ইসলাম

সাতক্ষীরায় বর্ণ লিখন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
‘এসো রক্তে জেতা বর্ণমালা সুন্দর করে লিখি’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে গত ২১ শে ফেব্রুয়ারী সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা কেন্দ্রিয় শহীদ মিনার চত্ত্বরে বর্ণ লিখন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। শিশুদের একুশের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করার জন্যই ছিল ইয়ূথদের এই উদ্যোগ। প্রতিযোগিতায় ৫০ জন শিশু অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতা শেষে ক, খ ও গ বিভাগের প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স’ান অর্জনকারীদের মধ্যে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে শহীদদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরাবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে শিশুরা একুশের গান, কবিতা ও বক্তব্য দিয়ে আয়োজনটিকে সার্থক করে তোলে। কার্যক্রমটি বাস-বায়ন করার জন্য সার্টিফিকেট দিয়ে সহযোগিতা করে কারক নাট্য সমপ্রদায় ঢাকা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করে ইয়ূথ লিডার অধীশ দাশ।
রিপোর্ট: অধীশ দাশ

কিশোরগঞ্জে আনর্-র্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষায় কথা বলার প্রতিযোগিতা
ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার কটিয়াদী উপজেলা ইউনিটের উদ্যোগে নানা আয়োজনে সাড়ম্বরে আনর্-জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়। ২০ ফেব্রুয়ারী দিবাগত রাত ১২ টা ০১ মিনিটে তোপধ্বনির পর ইয়ূথ লিডাররা কটিয়াদী উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে ভাষা শহীদদের স্মরণ করেন। ২১ ফেব্রুয়ারী তারিখ সকাল ৭ টায় যোগদেন প্রভাতফেরীতে। এরপর ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ও এ্যাকটিভ সিটিজেনদের পক্ষ থেকে পুস্পস-বক অর্পন করেন মোজাম্মেল হক। ২য় পর্বে দুপুর ৩.০০ টায় শুরু হয় বাংলা বলার প্রতিযোগিতা। এ প্রতিযোগিতার মূল উদ্দেশ্য হলো একজন ব্যক্তিও যেন বাংলায় কথা বলার পাশাপাশি কোন ধরনের ইংরেজী শব্দ ব্যবহার না করে। করলে তাকে তাৎক্ষিকভাবে প্রতিযোগীতা থেকে সরে যেতে হবে। এরই ধারাবাহিকতায় একুশের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে ২৬ জন ইয়ূথ লিডারকে নিয়ে ভিন্ন ধর্মী এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন। এই খেলায় সিদরাতুল মোনতাহা প্রথম স’ান, মাহবুবুর রহমান ২য় স’ান, বোরহান উদ্দিন ৩য় স’ান অর্জন করে। এ প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপসি’ত ছিলেন মেন্টর হাবিবুর রহমান বর্ণালী। তিনি বলেন ইয়ূথদের এরকম ব্যাতিক্রমধর্মী আয়োজনে সব সময় আমরা পাশে থাকবো। প্রতিযোগিতার পর্বটি সঞ্চলনা করেন ইয়ূথ একটিভিষ্ট মোজাম্মেল হক।
রিপোর্ট:  মোজাম্মেল হক

ঝিনাইদহ সদর ইউনিটের উদ্যোগে রচনা প্রতিযোগিতা
গত ১৯ মার্চ ২০১২ ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ঝিনাইদহ সদর ইউনিটের উদ্যোগে শিশুকুঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজে(স্কুল শাখা) নারী দিবসের মর্মকথা শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।  উক্ত রচনা প্রতিযোগিতায় প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৩৬(নারী-১৫,পুরুষ-২১) জন ছাত্র-ছাএী অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতা  শেষে বিজয়ী  ৩ জন ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে উপসি’ত ছিলেন কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক এম আব্বাস উদ্দিন । তিনি ইয়ূথদের উদ্যোকে স্বাগত জানান। এটি আয়োজনে ভূমিকা রাখেন অমিত,সাইদ,রবিনা,সুমাইয়া,ইতি,দেলোয়ার এবং মিনারুল।
রিপোর্ট: আবু সাইদ

টাংগাইল সরকারি সা’দত কলেজ ইউনিটের উদ্যোগে কুইজ প্রতিযোগিতা
“টাকা দিয়ে চাকুরী নয়, মেধাই আসল পরিচয়” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে সরকারি সা’দত কলেজ ইউনিটের ইয়ূথ বন্ধুরা ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা বিকাশের লক্ষ্যে প্রতিমাসের শেষ সপ্তাহে কারেন্ট অ্যাফেয়াসের্র উপরে কুইজ প্রতিযোগিতা আয়োজন করে আসছে। যে প্রতিযোগিতায় সা’দত কলেজের সকল বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীরা অংশগ্রহণ করে থাকে। প্রতিযোগিতাটি কলেজে অডিটোরিয়ামে সকাল ১০ টায়  অনুষ্ঠিত হয় এবং অংশগ্রহণকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্য থেকে মেধা তালিকার উপর ভিত্তি করে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় তিন জনকে পুরস্কৃত করা হয়। উক্ত পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকগণ উপসি’ত থাকেন। উক্ত কাজটি পরিচালনা করে সরকারি সা’দত কলেজ ইউনিটের ইয়ূথ বন্ধুরা।
রিপোর্টার- মাহবুব আলম।                                                           

ঝিনাইদহ সদর ইউনিটের উদ্যোগে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা
গত ১৮ ফেব্রয়ারী ২০১২ ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ঝিনাইদহ সদর ইউনিটের উদ্যোগে  কেমব্রীজ একাডেমিতে একুশের চেতনা বিষয়ক এক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। উক্ত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় একাডেমির ৩য় হতে ৫ম শ্রেণীর প্রায় ৩৫ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতা  শেষে বিজয়ী  ৩ জন ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে কেমব্রীজ একাডেমির অধ্যক্ষ ও অন্যান্য শিক্ষকমন্ডলী উপসি’ত ছিলেন। কার্যক্‌্রমকে এগিযে নেওয়ার জন্য অবদান রাখেন সাইদ,আমিনুল,ফারুক,অমিত,রুবিনা,সুমাইয়া,ইতি,আলম,মিনারুল প্রমূখ।
রিপোর্ট: আবু সাইদ

বরিশালে জমজমাট বর্ণমালা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
ভাষা শহীদের প্রতিশ্রুতি তারা রেখেছে ,রক্তের বিনিময়ে বর্ণমালা এনে দিয়েছে । আমরা বর্ণমালা ধারণ করব,সবার মাঝে ছড়িয়ে দিবো । এই প্রতিশ্রুতি নিয়ে ‘এসো রক্তে জেতা বর্ণমালা সুন্দর করে লিখি’ শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য গত ১২ ফ্রেবুয়ারী বেলা ৩ টায় বরিশাল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বরিশাল কারক সজন এর আয়োজন এবং ইয়ুথ এন্ডিং হাঙ্গার বরিশাল সদর ইউনিটের সার্বিক সহযোগিতায় আয়োজন করে বর্ণমালা প্রতিযোগিতা ।এখানে উপসি’ত ছিলেন ভাষা সৈনিক ইউসুফ উদ্দিন কালু , সরকারী ব্রজমোহন কলেজের ইতিহাস বিভাগের বিভাগীয় প্রধান স.ম.ইমানুল হাকিম ,পটুয়াখালী সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের  বিভাগীয় প্রধান সুলতানা পারভীন এবং সরকারি মহিলা কলেজ রসায়ন বিভাগের আসাদুল জামান আসাদ । ক খ ও গ এই তিনটি বিভাগে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় এবং সর্বমোট ৪২০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। উল্লেখ্য, এই কর্মসূচীর প্রতিবেদন দৈনিক প্রথম আলো, সমকাল সহ স’ানীয় কয়েকটি প্রত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এটি আযোজনে বিশেষ ভূমিকা রাখেন ইয়ূথ লিডার আওলাদ রাকিব।
রিপোর্ট: আওলাদ রাকিব

Advertisements