ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম-২০১০

ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম হলো ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ফোরাম। এই ফোরাম সংগঠনের নীতি ও কর্মকৌশল নির্ধারণের ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রতি বছর জাতীয় সম্মেলনের মধ্য দিয়ে পূর্ণ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম গঠিত হয়ে থাকে, কিন’ ২০০৯ সালে সম্মেলন অনুষ্ঠিত না হওয়া এবং পুরাতন গঠনতন্ত্রের জন্য সৃষ্ট কিছু জটিলতা তৈরী হয়। যার ফলে ফোরামের কার্যক্রমে শিথিলতা আসে এবং নেতৃত্বের সংকট তৈরী হয়। সেই সংকট কাটিয়ে ওঠা এবং  ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরামে গতিশীলতা আনার লক্ষ্যেই গত ৩১ মার্চ ঢাকায় অনুষ্ঠিত জাতীয় সম্মেলন কমিটির প্রথম প্রস’তি সভার সিদ্ধানে-র আলোকে চর্তুদশ জাতীয় সম্মেলনে ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম পুনর্গঠন করা হয়। এই ফোরামের মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১০ পর্যন-। ইতোমধ্যে ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম ও পঞ্চদশ জাতীয় সম্মেলন কমিটি একত্রিত হয়ে ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম গঠনের প্রক্রিয়া ও সদস্যদের বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করেছে। এই বৈশিষ্ট্যর আলোকে বর্তমান ফোরাম নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই সব অঞ্চলের সমান প্রতিনিধিত্বে নতুন ফোরাম গঠন এবং কেন্দ্রীয় সচিবালয়ের সহযোগিতায় ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের গঠনতন্ত্র সংশোধন করে নতুন আঙ্গিকে প্রকাশ করবে এই মর্মে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে ।
ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম ২০১০ এর সদস্যরা হলেন: ন্যাশনাল ইয়ূথ কো-অর্ডিনেটর শাহীন মাহমুদ, যুগ্ম ন্যাশনাল ইয়ূথ কো-অর্ডিনেটর মেহের নাজমুন ইসলাম তিশা, যুগ্ম ন্যাশনাল ইয়ূথ কো-অর্ডিনেটর জামিল আকতার, সদস্য হিসেবে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন:  মাসুদুল করিম মাসুদ, ফারুক হোসেন শাওন ,আমজাদ হোসেন রাজীব,এ, কে, মানিক।

ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম থেকে দুটি কথা

শুরুতেই ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বাংলাদেশ এবং ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরামের পক্ষ থেকে তোমাদের সকলকে জানাই আন-রিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। গত ৪-৫ জুন তোমাদের নিয়মিত লেখাপড়া,ক্লাস,পরীক্ষা থাকা সত্ত্বেও চতুর্দশ জাতীয় সম্মেলনে সময় দিয়েছো । সেজন্য আমি তোমাদের জানাচ্ছি রক্তিম শুভেচ্ছা, স্নেহ ও ভালোবাসা। সম্মেলনে তোমাদের বলিষ্ঠ উপসি’তি ও অনুঘটনীয ভূমিকা এটাই প্রমাণ করেছে য়ে, একমাত্র আমরাই পারি স্রোতের বিপরীতে দাড়াঁতে। তোমাদের সুদৃঢ় চেতনা আমাদের আশান্বিত হতে সাহায্য করে। তোমরা নিশ্চয়ই জানো, হাটি হাটি পা পা করে আমাদের প্রাণের সংগঠন ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ১৫ বছরে পদার্পণ করেছে। ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার এখন বাংলাদেশের একটি অন্যতম বৃহৎ ছাত্র সংগঠন হিসেবে শুধু দেশে নয়,দেশের বাইরেও এর সুনাম অর্জনে সক্ষম হয়েছে এবং দেশের প্রায় লক্ষাধিক ছাত্র-ছাত্রী এই সংগঠনের সাথে যুক্ত তারা সামাজিক দায়বদ্ধতা বোধের ভিত্তিতে কাজ করছে।
চতুর্দশ জাতীয় সম্মেলনে ২০১০-২০১১ সালের জন্য যে প্রত্যাশা ও সুর্নিদিষ্ট পরিকল্পনা নির্ধারণ করেছো ,তা অর্জনের লক্ষ্যে এখন থেকেই আমাদের একযোগে কাজ করতে হবে। একইসাথে চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই যাতে সব অঞ্চলের সমান প্রতিনিধিত্বে নতুন ফোরাম এবং আঞ্চলিক টিম গঠন করা যায় সেব্যাপারে তোমাদের হৃদ্যতাপূর্ণ সহযোগিতাও একান- জরুরী। বিশেষত নতুননেতৃত্ব বিকাশের আমাদের সকলেরই অনবদ্য ভূমিকা রাখতে হবে। নিয়মিত কাজের বাইরেও নিজেদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে আমরা নানা উদ্যোগ হাতে নিতে পারি। এব্যাপারে তোমাদের বিশেষ কোন ভাবনা থাকলে তা অবশ্যই জানাবে।

তোমাদের সকলের সুন্দর আগামীর প্রত্যাশায়-

শাহীন মাহমুদ, ন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর

Advertisements