ইয়ূথের চতুর্দশ জাতীয় সম্মেলনের সফল সমাপ্তি

যেন এক মহা মিলনমেলা, এ যেন একঝাক দায়িত্বশীল,প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, দেশপ্রেমী তরুণ সমাজের মহা সম্মিলন। 
গত ০৪-০৫ জুন ২০১০ গণস্বাস’্য কেন্দ্র (পিএইচএ ভবন) মিলনায়তন সাভার, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ-এর চতুর্দশ জাতীয় সম্মেলন। দুদিন ব্যাপী এই সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলার স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় এক হাজার মেধাবী ও স্বেচ্ছাব্রতী সংগঠক (ছাত্র-ছাত্রী) অংশগ্রহণ করেছিল। এছাড়া বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত শিক্ষক ও অভিভাবকগণও উপসি’ত ছিলেন।
উল্লেখ্য যে, এই সম্মেলনের উদ্দেশ্য ছিল : (ক) আত্মমর্যাদা ও আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ অর্জনের লক্ষ্যে পরিচালিত গণজাগরণের প্রচেষ্টায় ছাত্র-ছাত্রীদের নেতৃত্বে স্বেচ্ছাব্রতী বিভিন্ন উদ্যোগ ও অর্জনের (২০০৯) গঠনমূলক পর্যালোচনা করা; (খ) গণজাগরণ থেকে অর্জিত উল্ল্ল্ল্লেখযোগ্য শিক্ষণীয় দিক চিহ্নিত ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করা এবং (গ) পরবর্তী বছরের জন্য একটি সমন্বিত প্রত্যাশা সৃষ্টি । এবারের চতুর্দশ জাতীয় সম্মেলন ব্রিটিশ কাউন্সিলের আর্থিক সহযোগিতায় ও ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের সামগ্রিক ব্যবস’াপনায় এবং মাহমুদ হাসান রাসেলের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়।  প্রথম দিন শুরুতেই সম্মেলন কমিটির আহবায়ক লিপি আক্তার উপসি’ত সকলকে স্বাগত জানান। এরপর সকলে  সমবেত কন্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন। রংপুর থেকে আগত ইয়ূথ লিডার তিশার উপস’াপনায় উদ্বোধনী সংগীত “ধনধান্য পুস্পে ভরা” গানটি দলীয়ভাবে পরিবেশন করে ছন্দা, তিশা,মিমি,রানা ও রনি। উদ্বোধনী সংগীতের পরপরই ইয়ূথ লিডারদের পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্য রাখে ময়মনসিংহের মানিক, ঝিনাইদহের রিজু, রাজশাহীর মিতুল। অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক জনাব মুনির হাসান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক জনাব ড. খায়রুল বাশার, বিশিষ্ট নাট্যব্যক্তিত্ব জনাব দিলারা জামান , সংগঠক জনাব তাজিমা হোসেন মজুমদার , দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ এর গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও কান্ট্রি ডিরেক্টর জনাব ড. বদিউল আলম মজুমদার। মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি ঢাকা সিটি ইউনিটের ইয়ূথ লিডার সজীব এর নেতৃত্বে একটি কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন সকাল নয়টায় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে সম্মেলন শুরু হয় ও পুরাণ ঢাকার নিমতলীতে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে উপসি’ত সকলে এক মিনিট নিরবতা পালন করে। এরপর সারাদেশে  ইয়ূথদের কাজের উপর ভিত্তি করে একটি স্লাইড শো প্রদর্শন করা হয়। এই দিন ইয়ূথ লিডারদের পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করে ঝিনাইদহের তাসনিম, সিলেটের রিপ্টন, ময়মনসিংহের মৌসুমী,খাগড়াছড়ির নাজিম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জামিল, আহবায়ক লিপি আক্তার, যুগ্ম আহবায়ক মাসুদুল করিম। অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সমাজকর্মী জনাব রাফিয়া চৌধুরী, মানবাধিকার কর্মী জনাব হামিদা হোসেন, ড: বদিউল আলম মজুমদার, সংবিধান প্রণেতা জনাব কামাল হোসেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য জনাব ড. জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী, ই-গভর্নেন্স পলিসি এডভাইজার জনাব আনির চৌধুরী,সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক এর সভাপতি জনাব অধ্যাপক মোজাফ্‌ফর আহমদ,বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড এর জাতীয় কোচ জনাব মাহবুব মজুমদার, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ এর ডেপুটি ডিরেক্টর (প্রোগ্রাম) জনাব নাছিমা আক্তার জলি, জনাব নাইমুজ্জামান মুক্তা (অপপবংং ঃড় ওহভড়ৎসধঃরড়হ চৎড়মৎধসসব) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, জনাব আসিফ সালেহ প্রমুখ।

Advertisements