অন্যন্য খবর

ব্রিটিশ কাউন্সিলের দক্ষিণ এশিয়ার পরিচালক স্টিভেন রোমান এর মানিকগঞ্জে সামাজিক উদ্যোগ পরিদর্শন

ব্রিটিশ কাউন্সিলের দক্ষিণ এশিয়ার পরিচালক স্টিভেন রোমান ২১ ফেব্রুয়ারি আন-র্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে মানিকগঞ্জের ভাটবাউর এ স’ানীয় ইয়ূথ লিডার ও এ্যাকটিভ সিটিজেনসদের যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত ছাত্রকল্যাণ পাঠাগার ও কাউটিয়ায় গণশিক্ষা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। তিনি উপসি’ত অংশগ্রহণকারীদের সাথে মত বিবিময় করেন,তাদের অভিজ্ঞতা মনোযোগ দিয়ে শোনেন এবং তাঁর প্রয়োজনীয় পরামর্শ  প্রদান করেন। প্রায় ১৩০ জন এতে অংশগ্রহণ করেন। তিনি কার্যক্রম দু’টির ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি ছাড়াও কার্যক্রম দু’টিতে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট এর গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও  বাংলাদেশ এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার,সংগঠক তাজিমা মজুমদার, ঢাকার আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মুর্শিকুল ইসলাম শিমুল,স’ানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান,ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রোগ্রাম ম্যানেজার নাজমুল হক, প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর ফারজানা মাহতাব,ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বাংলাদেশ এর প্রধান সমন্বয়কারী জি,এম,শোয়েব আহমেদ,অশোক বিশ্বাস,মামুনুর রশীদ রাদিফ, ফোরাম সদস্য জামান, ইয়ূথ লিডার চাঁন,নজরুল,রাজিব,ওয়াসিম সহ আরো অনেকে উপসি’ত ছিলেন।

আন্ত-র্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী দিবস উদযাপনের খবর

৫ ডিসেম্বর আন-র্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী দিবস উপলক্ষে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ,ভিএসও,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি,বিএসএডি যৌথভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে দিনব্যাপী একটি অনুষ্ঠানরে আয়োজন করে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানের মাধ্যমে দিবসটির সূচনা হয় যেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য জনাব আআমস আরেফিন সিদ্দিক  সহ  ভিএসও,বিএসএডির উচ্চপদস’ কর্মকর্তারা উপসি’ত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ এর পক্ষ থেকে একটি স্টল দেয়া হয়। এতে ইয়ূথের বিভিন্ন প্রকাশনা ও কার্যক্রমের ছবি প্রদর্শিত হয়। অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু শিক্ষার্থী  ইয়ূথের স্বেচ্ছাসেবী আন্দোলনে যোগ দেয়। সারাদেশ থেকে প্রায় ৪০ জন স্বেচ্ছাসেবী এই অনুষ্ঠনে যোগদান করে। অনুষ্ঠানের শেষে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় । যেখানে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট এর গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার সহ ভিএসও,ডিইউডিএস এর কর্মকর্তা ও ব্যবস’াপনা কমিটির সদস্যরা উপসি’ত ছিলেন।  অনুষ্ঠানটি সমন্বয় করেন  ইয়ূথ সচিবালয়ের জি,এম, শোয়েব আহমেদ,অশোক বিশ্বাস,মামুনুর রশীদ রাদিফ,ফারহানা হোসেন সহ একদল নিবেদিত স্বেচ্ছাসেবক।

গণিত উৎসবের খবর

“গণিত নিয়ে খেলা কর, বিশ্বটাকে জয় কর” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ২০০৫ সালের শেষ দিক থেকে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার গণিত উৎসব শুরু করে। যার উদ্দেশ্য হচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীদের গণিত ভীতি দূর করা । আগামী জুন ২০১১ তে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ জাতীয় পর্যায়ে গণিত উৎসব আয়োজনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সেই পরিপ্রেক্ষিতেই অক্টোবর ২০১০ থেকে  ফেব্রুয়ারি ২০১১ পর্যন- মোট ৭টি গণিত উৎসব সম্পন্ন হয়েছে। ৪১৭৯ জন ছাত্র-ছাত্রী এত অংশগ্রহণ করে এবং প্রায় ৪৫০ জন শিক্ষক ,জেলা প্রশাসক,বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও অভিভাবক এর সাথে সম্পৃক্ত হয়েছেন। নিম্নে সংখ্যাতাত্ত্বিক বিবরণ তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক নং অনুষ্ঠিত হবার তারিখ স্থানের নাম অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা  (ছাত্র-ছাত্রী) আয়োজক   
২৮-০১-২০১১ ঘাতচকগৌরী উচ্চ বিদ্যালয়,ভীমপুর,মহাদেবপুর,নওগাঁ ৩০২ জন স্থানীয় ইয়ূথ লিডারবৃন্দ
২২-১০-২০১০ দত্ত হাই স্কুল,নেত্রকোনা ৮০০ জন স্থানীয় ইয়ূথ লিডারবৃন্দ
২৮-০১-২০১১ নজীপুর হাইস্কুল,পত্নীতলা, নওগাঁ ৪২৭ জন স্থানীয় ইয়ূথ লিডারবৃন্দ
v ২৮-০১-২০১১ মসূয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়,কটিয়াদি,কিশোরগঞ্জ ৫৬০ জন স্থানীয় ইয়ূথ লিডারবৃন্দ    
২৯-০১-২০১১ জালালপুর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় ৪৯০ জন স্থানীয় ইয়ূথ লিডারবৃন্দ    
৩০-০১-২০১১ কুষ্টিয়া পৌরসভা চত্ত্বর ১০০০ জন কুষ্টিয়া ইয়ূথ ফোরাম
২৮-০২-২০১১ পইল ইউনিয়ন পরিষদ মাঠ,হবিগঞ্জ সদর ৬০০ জন স্থানীয় সুজন বন্ধু ও ইয়ূথ সদস্যবৃন্দ

সুপার স্যাপ রিফ্রেশার্স কর্মশালা

১১-১২ জানুয়ারি ২০১১ দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ এর হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল সুপার স্যাপ রিফ্রেশার্স কর্মশালা। এর উদ্দেশ্য ছিল এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডারশিপ ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে সারা দেশের বিশটি কমিউনিটিতে গণশিক্ষার কার্যক্রমকে আরো বেগবান করে তোলা। কর্মশালাটিতে ট্রেনিং সংক্রান- দুর্বল দিক গুলো নিয়ে আলোচনা ও কিভাবে তা দূর করা যায় সে বিষয়ে সার্বিক দিক-নির্দেশনা প্রদান করা হয়। এছাড়া এ্যাকটিভ সিটিজেনস কি, কারা এ্যাকটিভ সিটিজেনস,তাদের ভূমিকা,ফ্যাসিলিটেটরদের ভূমিকা, সুপার সোশ্যাল এ্যাকশন প্রজেক্ট কি, ছবি দিয়ে পড়া শিখি বইটি কিভাবে ব্যবহার করে মাত্র ৪৫ দিনে শিক্ষার্থীদের সাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন করে তোলা যায় ,গণশিক্ষা কার্যক্রমকে কিভাবে আরো বেগবান করা যায়, এবং ফলোআপ প্রক্রিয়া কি হবে তা নিয়ে বিশদ আলোচনা করা হয়। আলোচনার বিভিন্ন সময় সহায়ক ও অতিথি হিসেবে উপসি’ত ছিলেন আনিসুল হক স্যার,সংগঠক তাজিমা মজুমদার,নাছিমা আক্তার জলি,জমিরুল ইসলাম,নাজমুল হক,জি,এম,শোয়েব আহমেদ,তহুরুল হাসান প্রমূখ।
আত্মশক্তি বিকাশ, নেতৃত্ব নির্মাণ, যোগাযোগ-দক্ষতা উন্নয়ন, সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠা, স্বেচ্ছাব্রতী আন্দোলনে উদ্বুদ্ধকরণ এবং সামাজিক উদ্যোগের জন্য প্রকল্প তৈরি, তহবিল গঠন এবং অংশীদারিত্ব ও বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্ক তৈরি করার লক্ষ্যে ব্রিটিশ কাউন্সিল-বাংলাদেশ ও দি হাঙ্গার প্রজেক্ট- বাংলাদেশ এর ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ইউনিটের যৌথ উদ্যোগে এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্বটি তরুণদের নিয়ে গত ১ আগস্ট ২০১০ থেকে ডিসেম্বর ২০১০ পর্যন- ৮০টি প্রশিক্ষণ সফলভাবে সম্পন্ন হয়। প্রশিক্ষণের পর ১৬২ টি স’ানীয় সামাজিক উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় যেগুলো এখনও চলমান। এ সকল প্রশিক্ষণে ২৫৭৮ জন তরুণ-তরুণী অংশগ্রহণ করে। যার মধ্যে নারী অংশগ্রহণকারী ছিল ১১১৪ জন এবং পুরুষ ১৪৬৪ জন। প্রশিক্ষণ গুলো পরিচালনায় সার্বিকভাবে সহায়তা করে এ্যাকটিভ সিটিজেনস ফ্যাসিলিটেটর:সোহাগ শাহীন,জামিল,মানিক,তুহিন,আশরাফুল,অনিক,সাব্বির,মামুন,ইউসুফ,রিজু,রিপন,হাসান,তিশা,হাবিবুল্লাহ,হানিফ,খোরশেদ,রাজিব-বরিশাল,অমিত,পলি,মাসুদ-খুলনা,মাসুদ-রাজশাহী,বাহাউদ্দিন,রেজাউল,কাশেম,মৌসুমী,মুনমুন,অমি,রাজ্জাক,ফিরোজ,নন্দিতা,শিমু,চাঁন,রাজিব-মানিকগঞ্জ,লিপি,মিজান,মতিউর,রাব্বি,সুদীপ্তা,নাসির,স্বপন,রাজিয়া,সোমা,সাইফুল,স্বপন,নিখিল,শফিক,মেহেদী,রনি,রুদ্র,শামীম,নিখিল,মাহমুদ, আমিনুল,করুনা সহ আরো অনেকেই।
উল্লেখযোগ্য সামাজিক উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গুলো হলো :বিজ্ঞান ক্লাব, ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ ক্লাব, পাঠাগার ও বিতর্ক ক্লাব গঠন; শতভাগ স্যানিটেশন নিশ্চিতকরণ; নিরক্ষরতা ও আর্সেনিক দূরীকরণ; স্বাস’্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম; ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ ও যৌতুক প্রতিরোধ; পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও বৃক্ষরোপণ অভিযান পরিচালনা; মাদক প্রতিরোধসহ বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিয়ে গৃহীত  প্রকল্পগুলোতে স’ানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও গণমাধ্যমের প্রতিনিধিদের অন-র্ভুক্ত করার ফলে স’ানীয় জনসমাজে ইতোমধ্যেই সেগুলো ইতিবাচক প্রভাব বিস-ার করেছে।
দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ এর ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ইউনিট ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহযোগিতায় ২০০৯ সালে এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং প্রকল্প গ্রহণ করে। আমরা আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে, প্রকল্পটির দ্বিতীয় পর্বটিও খুবই সফলতার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে।

রিজিওনাল মিটিং

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ দশটি আঞ্চলিক অফিসের অধীন জেলাসমূহে ইয়ূথের কাজকে আরো বেগবান করার লক্ষ্যে দশটি রিজিওনাল মিটিং সম্পন্ন হয়েছে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, মিটিংয়ের উদ্দেশ্য ছিল ইয়ূথের জেলাভিত্তিক কার্যক্রম পর্যালোচনা ও অভিজ্ঞতা বিনিময় (স্যাপ ও অন্যান্য), এ্যাকটিভ সিটিজেনস কর্মসূচীর বর্তমান অবস’া ও করণীয়, ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের সার্বিক ব্যবস’াপনা/ কৌশল নির্ধারণ ও  সাংগঠনিক কাঠামো নির্ণয়, ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরামের জন্য নাম সংগ্রহ, আঞ্চলিক ইয়ূথ টিম গঠন এবং গঠনতন্ত্র সংশোধন, সামাজিক উদ্যোগ মেলা,বিষয়ভিত্তিক ইয়ূথ লিডারশিপ ট্রেনিং এবং সার্টিফিকেট বিতরণ (প্রথম পর্ব), ইয়ূথের দক্ষতা বাড়ানোর জন্য কি কি করণীয়; স’ানীয় পর্যায়ে মানুষকে উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচী; (গণশিক্ষা ও গণিত উৎসবকে ফোকাস করা), চলতি বছরের প্রত্যাশার আলোকে এলাকাভিত্তিক জেলা/এলাকাভিত্তিক ৬ মাসের  সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ও দায়িত্ব বণ্টন এবং রিপোর্ট সংগ্রহ (আমরা করব জয় সংখ্যার জন্য)। মিটিংগুলোতে আঞ্চলিক অফিসের কর্মকর্তারা ছাড়াও ইয়ূথ সচিবালয়ের শোয়েব আহমেদ,অশোক বিশ্বাস,মামুনুর রশীদ রাদিফ ও সংগঠক তাজিমা মজুমদার উপসি’ত ছিলেন।

রিসোর্স সেন্টার বিষয়ক কর্মশালা
রিসোর্স সেন্টার ব্রিটিশ কাউন্সিলের এক অনন্য সাধারণ যেখানে ইংরেজি ভাষার শিক্ষকও শিক্ষার্থীদের জন্য একটি সুনির্বাচিত সংগ্রহশালা গড়ে তোলা হয়েছে। ১১ অক্টোবর ২০১০ ব্রিটিশ কাউন্সিলের ঢাকাস’ ফুলার রোড অফিসে রিসোর্স সেন্টার বিষয়ক দিনব্যাপী একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। কর্মশালাটিতে কিভাবে একটি ইংরেজি শিক্ষার জন্য রিসোর্স সেন্টার পরিচালনা করা যায়,একজন শিক্ষার্থীকে ব্যক্তিগত পাঠ পরিকল্পনায় ইৎসাহী,যাতে একজন শিক্ষার্থী নিজেই নিজের অবস’া,চাহিদা ও স্টাইলে কখন,কোথায় কতটুকু পড়বে তা নির্ধারণ করতে পারে  সে বিষয়ে সার্বিক দিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়। ব্রিটিশ কাউন্সিলের রিসোর্স সেন্টার এর কর্মকর্তারা কর্মশালাটি পরিচালনা করেন। দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশের ১২ জন কর্মী এতে অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালার শুরুতে একটি প্লেসমেন্ট টেস্ট গ্রহণ করা হয় লেভেল যাচাইয়ের জন্য। প্রত্যেক লেভেলের জন্য আলাদা-আলাদা বই রয়েছে। এর পর বিভিন্ন্‌ লেভেলের যেমন প্রি-ইন্টারমিডিয়েট,ইন্টারমিডিয়েট,এ্যাডভান্সড এর বইয়ের পরিচিতি প্রদান করা হয় এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে কিভাবে ইংরেজি বিষয়ে । যেগুলো চর্চারমাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী সহজেই ইংরেজিতে দক্ষতা অর্জন করতে পারবে। কর্মশালা শেষে অংশগ্রহণকারীদের সার্টিফিকেট প্রদান করা হয় এবং দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশের দশটি আঞ্চলিক অফিসের জন্য ব্রিটিশ কাউন্সিলের পক্ষ থেকে বই প্রদান করা হয়। বর্তমানে দশটি আঞ্চলিক অফিসের অধীন রিসোর্স সেন্টার এর কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এতে ইয়ূথের স্বেচ্ছাসেবীরা ছাড়াও অন্যান্য ছাত্র-ছাত্রীরাও অনুশীলনের সুযোগ পাচ্ছে। রিসোর্স সেন্টার সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ:

অঞ্চল আঞ্চলিক অফিসের ঠিকানা আঞ্চলিক /ইয়ূথের সমন্বয়কারী মোবাইল নম্বর
ঢাকা ৩/৭ আসাদ এভিনিউ, মোহাম্মদপুর,ঢাকা-১২০৭ মামুনুর রশীদ রাদিফ ০১৭৫৭১১৬৪৮৪
ময়মনসিংহ ২ কর্পোরেশন স্ট্রিট,পৌরসভা সংলগ্ন ময়মনসিংহ জয়ন- কর/খায়রুল বাশার ০১৭১৬০৫১৩৩২/০১৯১১৫৯৭৫২১
খুলনা ১৯ নং ওহাব এভিনিউ (নীচ তলা)ইকবাল নগর স্কুল সংলগ্ন  (গরীর নেওয়াজ ক্লিনিক এর পেছনে) খুলনা মোঃ মাসুদুর রহমান রঞ্জু ০১৭১১২২২৬৫০
বরিশাল গ্রীণহাউজ (২য় তলা) হোল্ডিং নং- ২৩৮/২৯৫ বাউন্ড কম্পাউন্ড,বরিশাল মোঃ নুরুল আফসার খান ০১১৯৭২০৯৩১৯
ঝিনাইদহ ৪২/১,ডাঃ কে আহমদ সড়ক,কাঞ্চননগর,ঝিনাইদহ-৭৩০০ মোঃ খোরশেদ আলম ০১৭১২৬২১৩২৩
চট্টগ্রাম বাড়ি: ৫৬, লেন: ৪,আব্দুল হামিদ সড়ক,চট্টগ্রাম মোঃ শাখাওয়াত হোসেন ০১৭১১২২২২৯৪
কুমিল্লা রাজু ঘোষের বাড়ি(নীচ তলা),বাইপাস, মধ্য লাকসাম (ফ্রেন্ডসক্লাবের পেছনে),কুমিল্লা স্বপন কুমার সিকদার ০১৭১২০২৩১৪১
সিলেট বাসা # ০৯ (৩য় তলা) ব্লক # ডি, রোড # ৩৪ উপশহর, সিলেট নাসির উদ্দীন ০১৭১০০০২৯৯৭
রাজশাহী বাড়ি নং- ৩৮(নীচ তলা) সপুরা ফিরোজাবাদ রাজশাহী জাকারুল ইসলাম ০১৭১৩৭২২৩৮৫
রংপুর নিউ ক্রস রোড, করতোয়া কুরিয়ার সার্ভিসের পেছনে,প্রেসক্লাব,রংপুর সদর তুহিন আলম/রাজেশ দে

০১৭১৩০৮৪০২৭/

০১৭১৮০৮৭৭০০

 

 

যুব প্রতিনিধিদের জন্য জাতীয় এ্যাডভোকেসি কর্মশালা অনুষ্ঠিত
কমনওয়েলথ ইয়ুথ প্রোগ্রাম, এশিয়া সেন্টার যৌথভাবে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং কমনওয়েলথ ইয়ুথ নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় গত ২৫-২৭ নভেম্বর ২০১০ পর্যন- তিনদিন ব্যাপী যুব প্রতিনিধিদের জন্য জাতীয় এ্যাডভোকেসি কর্মশালা সাভারস’ শেখ হাসিনা জাতীয় যুব কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জাতীয় যুব এ্যাডভোকেসির ক্ষেত্রে প্রতিফলনযোগ্য অভিজ্ঞতা প্রসারের লক্ষ্যে কমনওয়েলথ ইয়ুথ প্রোগ্রাম, এশিয়া সেন্টার এই কর্মশালার আয়োজন করে। উক্ত কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক জনাব মোঃ আজিজুর রহমান প্রধান অতিথি এবং কমনওয়েলথ ইয়ূথ প্রোগ্রাম, এশিয়া সেন্টার এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার স্ট্যানিজন দাওয়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপসি’ত ছিলেন। এছাড়া আরো উপসি’ত ছিলেন শেখ হাসিনা জাতীয় যুব কেন্দ্রের পরিচালক জনাব মোঃ আব্দুল হালিম, কমনওয়েলথ ইয়ূথ নেটওয়ার্ক-এর সহ-সভাপতি জনাব মোঃ রেজাউল করিম, কমনওয়েলথ ইয়ুথ ককাস, বাংলাদেশ- শাহরিন শ্রাবণ তিলোত্তমা এবং ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রোগ্রাম ম্যানেজার নাজমুল হক। কর্মশালায় জাতীয় পর্যায়ে কর্মরত বিভিন্ন যুব/ছাত্র সংগঠনের ৩০ জন প্রতিনিধি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। উক্ত কর্মশালায়  ব্রিটিশ কাউন্সিলের এ্যাকটিভ সিটিজেনস কর্মসূচীর প্রতিনিধিত্ব করেন ইয়ূথ মোবিলাইজেশন ইউনিটের অশোক বিশ্বাস। কর্মশালায় ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার এবং এ্যাকটিভ সিটিজেনস কর্মসূচীর সার্বিক কার্যক্রমের প্রদর্শীত বিশেষ ডিসপ্লে সকলের ভূয়সী প্রশংসা কুড়াতে সক্ষম হয়। উল্লেখ্য, তিন দিন ব্যাপী কর্মশালাটি পরিচালনা করেন কমনওয়েলথ ইয়ুথ প্রোগ্রাম, এশিয়া সেন্টার এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার স্ট্যানিজন দাওয়া।

 

Advertisements