দুর্নীতি অন্যায়, বঞ্চনা ও অবিচার-এর বিরুদ্ধে সংগঠিত প্রতিরোধ গড়ার অঙ্গীকার

“সমৃদ্ধ দেশ আলোকিত মন, হয়ে উঠি সচেতন একজন” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে সাভার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র মিলনায়তনে আনন্দঘন পরিবেশে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশের দুই দিনব্যাপী দ্বাদশ জাতীয় সম্মেলন ও এক যুগ পূর্তি অনুষ্ঠান সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

এ সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন ইউনিয়ন, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় এক হাজার মেধাবী ও স্বেচ্ছাব্রতী সংগঠক (ছাত্র-ছাত্রী) অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া বেশ কিছু শিক্ষক ও অভিভাবকও উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনের প্রথম দিন সমবেত কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে দিনের শুভ সূচনা হয়। এছাড়া ইউনিট প্রতিনিধিসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের অনুভূতি জ্ঞাপন, উপস্থিত বক্তৃতা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের প্রথম দিন অতিবাহিত হয়। সকাল ১০টায় আনন্দঘন পরিবেশে দ্বাদশ জাতীয় সম্মেলনের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান লেঃ জেনারেল (অবঃ) হাসান মশহুদ চৌধুরী। শুরুতেই সিডরে যারা প্রাণ হারিয়েছেন তাদের স্মরণে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নিরবতা পালন করা হয় ও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোর প্রতি সমবেদনা জানানো হয়।

সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে অংশগ্রহণকারীরা আত্মমর্যাদাপূর্ণ ও আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে পরিচালিত গণজাগরণের প্রচেষ্টায় ছাত্র-ছাত্রীদের নেতৃত্বে স্বেচ্ছাব্রতী উদ্যোগ ও অর্জনের (২০০৭) গঠনমূলক পর্যালোচনা করে ও তাদের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে। এছাড়া ৪টি দলের অংশগ্রহণে একটি কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

দ্বিতীয় দিন বিকেলের অধিবেশনে ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে স্বেচ্ছাশ্রমভিত্তিক গণজাগরণ সৃষ্টি করার উদ্দেশ্য নিয়ে আগত বছরের (২০০৮) জন্য একটি সমন্বিত প্রত্যাশা নির্ধারণ করা হয়। এ সকল প্রত্যাশার মধ্যে অন্যতম হল: দুর্নীতির বিরুদ্ধে তথ্য দিয়ে ১০০,০০০টি পরিবারকে সচেতন ও সোচ্চার করে তোলা; সরকারি প্রতিষ্ঠানকে যুক্ত করে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কমপক্ষে ১০ লক্ষ মানুষকে উদ্বুদ্ধ, সংগঠিত ও সোচ্চার করে তোলা; মানসম্মত শিক্ষা আন্দোলন গতিশীল করতে সারা দেশে ২০০ জন স্বেচ্ছাব্রতী নেতৃত্ব সৃষ্টি করা; স্বেচ্ছাব্রতী নেতৃত্বের মাধ্যমে সারা দেশের স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা; গণমাধ্যমকে যুক্ত করে সারা দেশে মানসম্মত শিক্ষা আন্দোলন সম্পর্কে জনমত সৃষ্টি করা; ৫২টি ইউনিয়নকে যৌতুক ও বাল্যবিবাহ মুক্ত ঘোষণা করা, সামাজিক ও পরিবেশ সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে জনগণের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করা প্রভৃতি।

আমরা করব জয়-৫৮

Advertisements