খুলনা বি.এল কলেজ ইউনিটের বর্ণিল শিক্ষাসফর

তখনও ভোরের শিশির মুক্তো ফোটানোর অপেক্ষায় ছিল, তবু ১৩ ফেব্রুয়ারি এমন শুভ্র সকালে শিক্ষা সফরের যাত্রীরা তারুণ্যের বাধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস আর উদ্দীপনায় শিশিরের মুক্তোর মতো জড়ো হলো খুলনা বি.এল কলেজ ক্যাম্পাসে। খুলনার বিভিন্ন ইউনিটের অংশগ্রহণকারী ইয়ূথ সদস্য, শুভানুধ্যায়ী ও সহযোদ্ধাদের মনের অভিপ্রা খেলছে প্রশান্তির হাওয়া। শিক্ষা সফরের প্রমোদবাহনও এসে পৌঁছেছে। কিছুক্ষণের মধ্যে যাত্রা শুরু হবে। সকলের চোখে মুখে নাচছে সেকি-আনন্দ! এমন সময় সফরের আনুষ্ঠানিক শুভসূচনার মঙ্গলবার্তা নিয়ে উপস্থিত হলেন খুলনা বি.এল কলেজের মান্যবর অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আহম্মেদ রেজা। তিনি অংশগ্রহণকারীদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান এবং শিক্ষাসফরকে সার্থক করে তুলতে সকলকে হৃদত্যাপূর্ণ সহযোগিতার আহ্বান জানান। বিশেষ ব্যস্ততার কারণে স্যার শারীকিভাবে উপস্থিত থাকতে না পারেলও মনেপ্রাণে তাদের সাথেই যাচ্ছেন এমন অনুপ্রেরণা আর আশার বাণী দিয়ে সকলকে বিদায় জানান। এরপর সরকারী বি.এল কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও ইউনিট উপদেষ্টা শংকর কুমার মল্লিক এবং প্রভাষক নুরুল আমিন স্যারের নেতৃত্বে শুরু হয় শিক্ষাসফরের আনুষ্ঠানিক যাত্রা। গন্তব্য- কুষ্টিয়া শিলাইদহের রবি ঠাকুরের কুঠিবাড়ী, লালনশাহের মাজার, পদ্মার রেনউইক বাধ, চলমান গণশিক্ষা স্কুল পরিদর্শনের মাধ্যমে অভিজ্ঞতা অর্জন এবং কুষ্টিয়ার ইয়ূথ বন্ধুদের সাথে অভিজ্ঞতা বিনিময়সহ আরো কত কি!

শিক্ষা সফরের আয়োজক বন্ধুরা চেয়েছিলেন আনন্দটা সকলের সাথে ভাগাভাগি করে নিতে। এজন্য পার্শ্ববর্তী জেলা সমূহের বন্ধুদেরকেও আহ্বান জানিয়েছিলেন। বন্ধুরাও দিয়েছিলেন ব্যাপক সাড়া। যশোর থেকে সারথী হলেন ইয়ূথ একটিভিট লোভা, ঝিনাইদহ থেকে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী খোরশেদ আলম, সরকারী কে.সি কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ নাজিম উদ্দিন, ইয়ূথ এক্টিভিস্ট অশোক, ফারুক, আমিনুল, লিটন এবং কুষ্টিয়া থেকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডঃ মিজানুর রহমান, কলকাকলি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক জাফর আহম্মেদ, ইয়ূথ লিডার মাহিন ও ফাহিম।

সবাই মিলে দুপুরের খাবার খেয়ে মিলিত হয় পাঠচক্রে এরপর টুকটাক কেনাকাটা শেষে বাকী গন্তব্যের দিকে ছুটলেন। এভাবেই অনাবিল আনন্দ আর উদ্দীপনার মাঝে কেটে গেল পুরো দিন। দিন শেষে সবাই মিলিত হলেন পদ্মার রেন উইক বাঁধে। সেখানে সম্মানিত শিক্ষক ও ইয়ূথ সদস্যরা সারাদিনের অর্জিত অভিজ্ঞতা, ভালো লাগা আর অনুভূতি ব্যক্ত করেন। সকলেরই প্রত্যাশা এই ধারাটি যেন অব্যাহত থাকে এবং এধরনের মিলন মেলায় আবারও যেন সারথি হতে পারে। এরকম আকাঙ্ক্ষার মধ্যে দিয়ে আয়োজনের পরিসমাপ্তি ঘটে। একবুক স্বপ্ন, প্রবল সাহস আর চোখ ধাধানো সৌন্দর্য স্মৃতি নিয়ে আমরা যখন বি.এল কলেজ ক্যাম্পাসে পৌছালাম তখন রাত সাড়ে দশটা। বুকের ভিতর আনন্দের ঝিলিক নিয়ে কৃষ্ণপক্ষের দুর্বল আলোতে শহরের নিরবতা ভেঙ্গে একে একে ইয়ূথ সদস্যরা পা বাড়ালো যার যার গন্তব্যে।

রিপোর্ট: শাহীন মাহমুদ।

আমরা করব জয়-৬৬

Advertisements

About John Coonrod

Executive Vice President, The Hunger Project
This entry was posted in অন্যান্য, কার্যক্রম. Bookmark the permalink.

One Response to খুলনা বি.এল কলেজ ইউনিটের বর্ণিল শিক্ষাসফর

  1. পিংব্যাকঃ আমরা করব জয়-৬৬

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়েছে।