জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উদযাপনের খবরা-খবর

p2

‘উত্ত্যক্তকারীর শাস্তি-কন্যাশিশুর মুক্তি’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নবম বারের মত সারা দেশে পালিত হল জাতীয় কন্যাশিশু দিবস। জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরাম এবং ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের উদ্যোগে এ দিবসকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। জাতীয় পর্যায়ে এ দিবসকে কেন্দ্র করে গত ১৫ অক্টোবর একটি বর্ণাঢ্য র্যালি এবং বাংলাদেশ শিশু একাডেমী মিলনায়তনে এক বিশেষ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ শিশু একাডেমী ও জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরামের যৌথ উদ্যোগে এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় সকাল ৯টায় প্রধান অতিথি হিসেবে মাননীয় উপদেষ্টা জনাব রাশেদা কে চৌধুরী উপস্থিত থেকে র্যালির শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর পরিচালক শাওলী সুমন, জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরামের সভাপতি ড. বডিউল আলম মজুমদার, অধ্যাপক লতিফা আকন্দ, বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী ইফফাত আরা নার্গিস, শিক্ষাবিদ ড. মেহের-ই-খোদা, জনাব রফিকুল ইসলাম সরকারসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন তাদের ব্যানারসহ অংশগ্রহণ করেন। এতে ঢাকার বিভিন্ন ইউনিটের ইয়ূথ সদস্যরাও স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন। র্যালিটি পাবলিক লাইব্রেরী মিলায়তন থেকে শুরু হয়ে বাংলাদেশ শিশু একাডেমীতে গিয়ে শেষ হয়। জাতির সর্বাঙ্গীণ বিকাশের সাথে কন্যাশিশুর বিকাশ যুক্ত; তাই আজ আমরা সেই অধিকার আদায়ের নতুনভাবে অঙ্গীকার করার জন্য একত্র হয়েছি- কিশোরী বিউটি আক্তারের এই অনুভূতির মধ্যদিয়েই র্যালির যাত্রা শুরু হয়। র্যালির উদ্বোধনের সময় মাননীয় উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, আমরা যেন আমাদের ভবিষ্যত কর্ণধার শিশুদের সকল অধিকার সচেতনভাবে পালন করতে পারি। কন্যাশিশুর নিরাপদে-নির্বিঘ্নে পথ চলা যেন নিশ্চিত করতে পারি এবং তা যেন হয় নগর-গ্রামসহ সকল জায়গায়; তাহলেই নিশ্চিত হবে আমার ভবিষ্যত সম্ভবানার সকল অধিকার।

র্যালি শেষে সকাল ১০.৩০টায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমীতে এক বিশেষ আলোচনা সভায় ড. বদিউল আলম মজুমদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব রোকেয়া সুলতানা। এছাড়া অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মুস্তাফা মনোয়ার, জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরামের সহ-সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক লতিফা আকন্দ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব অধ্যাপিকা তাহমিনা হোসেন, বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর চেয়ারম্যান ও যুগ্ম সচিব জনাব মুশফিকা ইফফাত, ভাষা সৈনিক ও অধ্যাপক ড. হালিমা খাতুন, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর নির্বাহী পরিচালক জনাব শাহীন আনাম, এসিড সারভাইভার্স ফাউন্ডেশন এর নির্বাহি পরিচালক জনাব মনিরা রহমান, ঢাকা আহছানিয়া মিশন কর্মসূচি পরিচালক জনাব শফিকুল ইসলাম ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক মুখ্য বার্তা সম্পাদক জনাব রফিকুল ইসলাম সরকার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরামের সম্পাদক জনাব নাছিমা আক্তার জলি।

উল্লেখ্য, প্রতি বছর ৩০ সেপ্টেম্বর কন্যাশিশু দিবস পালন করা হয়ে থাকে। কিন্তু ঈদ ও পূজার কারণে এ বছরই প্রথম বারের মত ১৫ অক্টোবর দিবসটি পালন করা হলো। দিবসটিকে কেন্দ্র করে জাতীয়ভাবে নানামুখি কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। এ সকল কর্মসূচির মধ্যে ১৮ অক্টোবর বিকেল ৩টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে গোলটেবিল বৈঠক এবং ২০ অক্টোবর বাংলাদেশ শিশু একাডেমী মিলনায়তনে বিশেষ সচেতনতামূলক বিতর্ক উল্লেখযোগ্য। এ সকল কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ইয়ূথ সদস্যরা সক্রিয় ভূমিকা পালন করে।

এছাড়া প্রাপ্ত খবরানুসারে জেলা সদরসহ স্থানীয় বিভিন্ন পর্যায়ে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের উদ্যোগে যে সকল স্থানে কন্যাশিশু দিবস পালিত হয় সেগুলো নিম্নে তুলে ধরা হলো:

জয়পুরহাট
জয়পুরহাট সদর ইউনিট জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে গত ১৫ অক্টোবর কেশবপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাধারন জ্ঞান ও সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাধান শিক্ষক মোঃ শহীনুর আলম, মানবজমিন পত্রিকার জয়পুরহাট প্রতিনিধি সাহাদুল ইসলাম সাজু ও জেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার শাজেদুল ইসলাম। অনুষ্ঠান শেষে অতিথিরা বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার ও সার্টিফিকেট তুলে দেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানকে আরও প্রাণবন্ত করে তুলতে এতে অংশগ্রহণ করেন রাজশাহী সিটি ইউনিটের সদস্য ও ইয়ূথ লিডার মাসুদ ও আমীর হামজা। এছাড়া আয়োজনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন ইয়ূথ সদস্য মাহফুজ, রায়হান, বোরহান, সুবেহ সাদিক বন্না, সুমী, তিতাস, রুবেল, রাসেল, আইভি, মনোয়ারা, আরাফাত, সাইদা, জনিসহ আরো অনেকে। স্বেচ্ছাসেবকরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত অংশগ্রহণকারীদের মাঝে জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরাম কর্তৃক প্রকাশিত লিফলেটও বিতরণ করেন।

রাজশাহী

image10
“উত্ত্যক্তকারীর শাস্তি-কন্যাশিশুর মুক্তি” এই স্লোগানকে সামনে রেখে রাজশাহী সিটি ইউনিট গত ১৫ অক্টোবর জাতীয় কন্যাশিশু দিবস পালন করে। এ উপলক্ষে সিটি ইউনিটের সদস্যরা “লক্ষ্মীপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়”-এ ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। রচনা প্রতিযোগিতা শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও পুরস্কার প্রদান করা হয়। বিজয়ী ৩ জনকে একটি করে প্রত্যয়নপত্র দেয়া হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফজলুল নেছা বেগম, সহকারি প্রধান শিক্ষক গৌড় গোপাল সরকার, সহকারি শিক্ষক মোঃ ফারুক হোসেনসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ। এছাড়াও যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও সহযোগিতায় অনুষ্ঠানটি সফলভাবে শেষ হয় তারা হলেন “রাজশাহী সিটি ইউনিটের সদস্য- মোঃ শামসুজ্জামান, মোঃ রিয়াদ হাসান, মোঃ রাশেদ নিজাম, মোঃ ইউসুফ, মোঃ কাওসার আহমেদ, তৃপ্তি চৌধুরি ও মোঃ মাসুদুল করিম মাসুদ।

ময়মনসিংহ

image14
গত ১৫ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুরে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বর্ণমালা ইউনিটের আয়োজনে বর্ণমালা আদর্শ কিন্ডার গার্ডেন সিংজানী ও তাঁতকুড়া শাখায় পালিত হয় জাতীয় কন্যাশিশু দিবস। দিবসটি উপলক্ষে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, র্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য প্রদান করেন ইয়ূথ লিডার বিদ্যুৎ কুমার নন্দী, নয়ন কুমার দাস, হুমায়ুন কবীর, বাবুল কান্তি ধর, রূপা খাজাঞ্চী, স্বর্ণালী ভৌমিক, ফরিদা আক্তার, সুনিল ভৌমিক, প্রাণতোষ ভৌমিক, মিয়া হোসেন মুন্সি, নন্দ দুলাল, বিল্লাল হোসেন প্রমুখ। উক্ত দিবস উদযাপনে যাদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল তারা হচ্ছে – তনয়, শান্ত, আজম, ময়না, কলি, লাইলী, বুলবুল, বাবুসহ আরো অনেকে।

ময়মনসিংহ সদরের চরনিলক্ষিয়া ইউনিয়নের প্রতিভা ইউনিট জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে ‘উত্ত্যক্তকারীর শাস্তি-কন্যাশিশুর মুক্তি’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এক বর্ণাঢ্য র্যালির আয়োজন করেন। র্যালি শেষে রাঘবপুর আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতি মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার আনন্দমোহন কলেজ ইউনিট ও আনন্দমোহন কলেজ ডিবেটিং সোসাইটির যৌথ আয়োজনে ‘ইভটিজিং প্রতিরোধে পুরুষের মনোভাবের পরিবর্তনই যথেষ্ট’ শীর্ষক এক প্রীতি বিতর্ক এবং সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রফেসর মোঃ শহীদুল্লাহ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর রোকেয়া বেগম।

নেত্রকোণা

image67
জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে নেত্রকোণা সরকারি কলেজে এক বিশেষ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আলোচনায় অংশ নেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ রুহুল আমিন, মোঃ ফারুকি বিল্লাহ, মোঃ আব্দুল জলিল, সুশান্ত সরকার, মোঃ শাহাজাহান কবির জনি, মাহাবুবুর রহমান খান রৌদ্র, ইসমাইল হোসেন, সোনিয়া আক্তার, তামান্না আক্তার, সাইদুল ফকির, ওয়াহিদা আক্তার কুলসুম, সিবলী, এনাম আহম্মেদ, আনিছ, রেজাউল করিম এবং সাইফুল ইসলাম। আলোচনায় মোঃ রুহুল আমিন বলেন, ইদানিং মোবাইল ফোনে সবচেয়ে বেশি উত্ত্যক্ত করা হয় কন্যাশিশুদের। তিনি আরও বলেন, কোন অবস্থাতেই কন্যাশিশুকে উত্ত্যক্ত করা যাবে না। কন্যাশিশু দিবস উদ্যাপনের মধ্য দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীসহ সর্বস্তরের জনগণের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করার বিষয়টি উল্লেখ করেন মোঃ ফারুকি বিল্লাহ বলেন।

গত ১৫ই অক্টোবর জাতীয কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে নেত্রকোণা সরকারী কলেজে ইয়ূথ লিডারদের আয়োজনে একটি সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অধ্যাপক মোঃ রুহুল আমিন (রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ), সহযোগী অধ্যাপক মোঃ ফারুকী বিল্লা (বাংলা বিভাগ), উপাধ্যাক্ষ মোঃ আবুল জলিল প্রমুখ। প্রতিযোগিতায় কলেজের প্রায় ২০০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করেন।
-তামান্না আক্তার

কিশোরগঞ্জ

untitled-21
উত্ত্যক্তকারীর শাস্তি-কন্যাশিশুর মুক্তি’- শ্লোগানকে সামনে রেখে কটিয়াদী উপজেলা ইউনিটের আয়োজনে জাতীয় কন্যাশিশু দিবস পালিত হয়। সকাল ৯টায় কটিয়াদী আদর্শ বিদ্যানিকেতনের শিক্ষক ও ডা. আব্দুল মান্নান মহিলা কলেজের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে কর্মসূচির সূচনা হয়। পরে রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ জেলা উজ্জীবক ফোরামের সভাপতি জনাব আবদুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন। আলোচনা সভা শেষে পুরষ্কার বিতরণীর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপনী করা হয়। অনুষ্ঠানটি সফল করতে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন মোজাম্মেল হক, তানিয়া, হাকিকত, শফিক ও হাবিবুর রহমান।

খুলনা

untitled-20
‘উত্ত্যক্তকারীর শাস্তিকন্যাশিশুর মুক্তি’- এই প্রতিপাদ্যকে সমানে রেখে গত ১৫ অক্টোবর ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার, সরকারী বি এল কলেজ ইউনিটের উদ্যোগে জাতীয় কন্যাশিশু দিবস পালিত হয়। কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে র্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন হয়। র্যালির উদ্বোধন করেন সরকারী বি এল কলেজের মাননীয় অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আহম্মেদ রেজা। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সরকারী বি এল কলেজের উপাধ্যক্ষ জনাব খুর্মিদা হক, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক লিয়াতক পারভেজ, ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক অভিজিত বসু এবং সহযোগী অধ্যাপক তবিবার রহমান। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন ইংরেজী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক তহিদুজ্জামান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবুল বাশার মোল্লা, প্রভাষক মুকুল হায়দার এবং অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী রবিউল ইসলাম। এছাড়াও আরো অনেক শিক্ষক প্রতিনিধি র্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। অধ্যক্ষ ড. আহম্মেদ রেজা বলেন “জন্মলগ্ন থেকে কন্যাশিশুর প্রতি বৈষম্য শুরু হয়। এ বৈষম্য দূরীকরণে আমাদের এগিয়ে আসতে হবে।” র্যালিতে কলেজের বিভিন্ন বিভাগের ২০ জন শিক্ষক ও প্রায় ৩০০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করেন। র্যালিটি কলেজ প্রদক্ষিণ শেষে প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। এরপর শুরু হয় আলোচনা সভা। সভায় সভাপতিত্ব করেন সরকারী বি এল কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক ও ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান জনাব তহিদুজ্জামান। তিনি তার ব্যক্তব্যে বলেন, “পরিবারে ও সমাজে ছেলে- মেয়েদের বৈষম্য কমিয়ে এনে মনো-সামজিক পরিবর্তন ঘটাতে হবে। আলোচনায় ব্যক্তব্য রাখেন ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার সরকারী বি এল কলেজের উপদেষ্টা ও বাংলা বিভাগের সহযোগী সম্পাদক অধ্যাপক শংকর কুমার মল্লিক। তিনি বলেন “বৈষম্য ছাড়াও কন্যাশিশু ব্যাপক হারে নির্যাতনের শিকার হয়। এ নির্যাতন রোধে আমাদের সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।” এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন ইউনিটের উপদেষ্টা ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক জনাব আবুল বাশার মোল্লা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বাংলাদেশের যুগ্ম ন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর শাহীন মাহমুদ। আলোচনায় সমাপনী বক্তব্য রাখেন ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বি এল কলেজ ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর মোঃ মোক্তার হোসেন। অনুষ্ঠানটি সফল করতে বিশেষ ভূমিকা রাখেন আল-আমিন, মাহিদ, শিখা, শফিক, মামুন, সুলতানাসহ আরো অনেকে।

জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার পাটকেলঘাটা হারুন-অর-রশিদ কলেজ ইউনিটের উদ্যোগে এক বর্নাঢ্য র্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান, অধ্যাপক বীরেন্দ্রনাথ মাহাতা এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন ত্রয়োদশ জাতীয় সম্মেলন কমিটির আহবায়ক হেদায়েত হোসেন। অধ্যাপিকা মনোয়ারা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ইয়ূথ সদস্য তৃষ্ণা স্যানাল, অধ্যাপক নাজমুল হোসেন, আনারুল হক, শাহ ফকির আহমেদ, আনজুয়ারা খানমসহ আরও অনেকে। আলোচনা সভার পর কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করে।

মেহেরপুর

image8
জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে সকাল ৯টা থেকে ১০.৩০ মিনিট পর্যন্ত মেহেরপুর র্যালি করা হয়। এই র্যালির প্রধান দায়িত্বে ছিলেন সুজন-এর সাধারণ সম্পাদক শামিম, জাহাঙ্গীর, সেল্টু এবং কো-অর্ডিনেটর নাছিম হায়দার। এছাড়াও র্যালিতে সহযোগিতা ছিলেন নাঈমা ও ইমরান।

রিপোর্ট: মাসুদ পারভেজ, সুবেহ সাদিক বন্না, মোঃ মাসুদুল করিম মাসুদ, তানিয়া নাছরিন (বর্ণালী), বিদ্যুৎ কুমার নন্দী, রাইসুল ইসলাম অনিক, মোঃ শাহাজাহান কবির ও তানিয়া নাছরিন (বর্ণালী)।

আমরা করব জয়-৬৫

Advertisements

One comment

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়েছে।