“প্রত্যাশা, প্রতিশ্রুতি ও কার্যক্রম” শীর্ষক কর্মশালার খবরা-খবর

image4
গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি হাই স্কুলে গত ১ জুলাই স্থানীয় স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এই কর্মশালায় ৬ জন ছাত্রী ও ২০ জন ছাত্র অংশ নেয়। এছাড়া কর্মশালায় ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের সাবেক কো-অর্ডিনেটর ও স্থানীয় উজ্জীবকরা উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালা শেষে সকলের মতামতের ভিত্তিতে ফুলছড়ি ইউনিট গঠন করা হয়।

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-ঝিনাইদহ সদর ইউনিটের উদ্যোগে গত ৩ জুলাই ঝিনাইদহের হরিনাকুণ্ডু উপজেলা শাখারীদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে “প্রত্যাশা প্রতিশ্রুতি ও কার্যক্রম” শীর্ষক এক বিশেষ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিদ্যালয়ের ৭৬ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ এবাদত হোসেন। কর্মশালা শেষে বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণীর ছাত্র টুটুল হায়দারকে কো-অর্ডিনেটর নির্বাচিত করে একটি ইউনিট গঠিত হয়। কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত অন্যান্য সদস্যরা হলেন – শাবানা, শামীম, জাকির, আঁখি, শুভাগত, কাজল, আফরোজা, বনিতা, আকান্দ, আন্না শামীম প্রমুখ। উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যরা হলেন প্রধান শিক্ষক মোঃ এবাদত হোসেন, এলাহী বকস, তাপসী দেবনাথ, সাজেদুর রহমান এবং অতুল কুমার পাল। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট অশোক বিশ্বাস এবং তাকে বিশেষভাবে সহযোগিতা করেন মাহফুজ, আমিনুল, লিটন ও মুজাহিদ।

নেত্রকোণা মহিলা কলেজ ইউনিটের উদ্যোগে গত ০৩ জুলাই একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। কর্মশালা শেষে অনুভুতি প্রকাশ করতে গিয়ে একজন ছাত্র বলেন, “আমরা প্রত্যেকেই সমাজের কাছে ঋণী এবং এই ঋণের কারণে আমরা সমাজের প্রতি দায়বদ্ধ। আমি লেখাপড়া শিখে মানুষ হতে চেয়েছি নিজের ও পরিবারের জন্য। কিন্তু এখানে এসে আমার মন-মানসিকতায় পরিবর্তন এসেছে। আমিও এ সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত থেকে পড়ালেখার অবসরে মানুষের জন্য কাজ করে যেতে চাই।” কর্মশালা শেষে মোরশেদা বেগম মলিকে কো-অর্ডিনেটর ও রিপা আক্তারকে (যুগ্ম কো-অর্ডিনেটর) করে ১২ সদস্য-বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ লিডার শাহাজাহান কবির। কর্মশালাটি সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনে ওয়াহিদা আক্তার কুলসুম, হাবিবা আক্তার, সোনিয়া আক্তার ও তামান্না আক্তার আরো অনেকেই ভূমিকা পালন করে।

গত ৬ জুলাই ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-মেহেরপুর সদর ইউনিটের উদ্যোগে গোভীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে “প্রত্যাশা, প্রতিশ্রুতি ও কার্যক্রম” শীর্ষক একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিদ্যালয়ের ৫৩ জন শিক্ষার্থী স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন। যার মধ্যে নারী শিক্ষার্থী ছিলেন ৩১ জন। কর্মশালাটি সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ জিয়াউদ্দিন ফারুক। বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে কর্মশালা শেষে সর্বসম্মত সিদ্ধান্তের আলোকে মোঃ মিলন আলীকে কো-অর্ডিনেটর নির্বাচিত করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট ইউনিট কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ৫ জনকে উপদেষ্টা হিসেবে রাখা হয়। কার্যকরী কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্যরা হলেন জলি, রকিবুর, শাহিন, ফাতেমা, সোহেলা, সিলভী, নান্নু, সাইমা, সুমন ও রাশেদ এবং উপদেষ্টা কমিটির সদস্যরা হলেন জিয়াউদ্দিন ফারুক, মিসেস লাবনী, মোহন, মোখলেছুর রহমান ও পলি রহমান। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট আশোক বিশ্বাস ও তাকে বিশেষভাবে সহযোগিতা করেন ইয়ূথ লিডার অনিক, নিপা ও নার্গিস।

গত ১০ জুলাই সকাল ১০টায় নরসিংদী সরকারি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের ক্লাসরুমে কর্মশালা শুরু হয়। কর্মশালার মূল আলোচনা শুরু করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট জামিল আক্তার। কর্মশালার আলোচনায় সহায়তা করেন স্থানীয় ভিটিআর সোহাগ। কর্মশালায় নরসিংদী সরকারি কলেজের ৭১ জন ছাত্র-ছাত্রী উপস্থিত ছিলেন। এদের মধ্যে ছাত্রী ছিলেন ২৭ জন। কর্মশালা শেষে পাপিয়া খন্দকারকে আহবায়ক করে নরসিংদী সরকারি কলেজ ইউনিট গঠন করা হয়।

কালিয়াকৈর থানার, গাজিপুর জেলার কাঁথাচুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৭ জুলাই সকাল ১০টায় একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালা শেষে রনি আহমেদকে আহ্বায়ক করে কাঁথাচুড়া উদীয়মান ইউনিট গঠন করা হয়। ইউনিটের অন্যান্য সদস্যরা হলেন – শাহাদত, লুৎফর রহমান, ফজলুল হক, মুসেদা আক্তার, দেলোয়ার হোসেন, নাজমুল আলম, শেফালি আক্তার, শহিদুল ইসলাম ও শিল্পী আক্তার। জনাব মোঃ ইসহাক আলী, মোঃ আহসান সাইফুল্লা, আজাহার সিকদার, সেলিম হোসেন, আবু সাইদকে কমিটির উপদেষ্টা নির্বাচন করা হয়। কমিটির সকলে মিলে প্রতি শুক্রবার সকাল ১০টায় কাঁথাচুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়মিতভাবে সাপ্তাহিক সভা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

গত ২৭ জুলাই সিলেমপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে প্রায় ৪৫ জন ছাত্র-ছাত্রীর উপস্থিতিতে একটি কর্মশালা করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন শাহীন মাহমুদ ও হাবিবুর রহমান (হৃদয়)। বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ ও মণিরামপুর সদর ইউনিট যৌথভাবে কর্মশালাটির আয়োজন করে। সদস্যদের মধ্যে হাবিব ও লোভা কর্মশালাটি সফল করে তুলতে ভূমিকা পালন করে।

২৭ জুলাই করিমগঞ্জ সদর ইউনিটের আয়োজনে তাড়াইল উপজেলার তালডাঙ্গা ইউনিয়ন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি ইউনিট গঠন করা হয়। এ কর্মশালায় ৫৪ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব মোহাম্মদ নজিম উদ্দিন ভূঁইয়া। কর্মশালার শেষ পর্যায়ে সর্বসম্মতিক্রমে বদরুন্নেছাকে কো-অর্ডিনেটর ও আয়েশা আক্তারকে সহকারি কো-অর্ডিনেটর করে “আশার আলো” নামে একটি ইউনিট গঠন করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন জাতীয় সম্মেলন কমিটির সদস্য দেওয়ান মোঃ এনায়েতুল ইসলাম, ইয়ূথ লিডার আসাদুজ্জামান লিমন, শারমীন আক্তার ও নাঈমা সুলতানা রুবী। এ কার্যক্রমটি সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনে বিশেষভাবে সহযোগিতা করেন বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক জনাব মোহাম্মদ আবু বক্কর ছিদ্দিক।

২৮ জুলাই খুলনার ডুমুরিয়া থানার বরুনা বাজার (পি.ডি.সি) কলেজিয়েট স্কুলে মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এ কর্মশালায় প্রায় ৬০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালাটি সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের ক্ষেত্রে সহযোগিতা করেন ইয়ূথ লিডার মোঃ রাজু আহম্মদ ও মোঃ সাইদুর রহমান।

৩০ জুলাই কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার করিমগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে “প্রত্যাশা, প্রতিশ্রুতি ও কার্যক্রম শীর্ষক” একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালাটির আয়োজন করে করিমগঞ্জ ‘সদর ইউনিট’। উক্ত কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন করিমগঞ্জের উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আবুল কালাম আজাদ। এছাড়া উক্ত বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ নবী হোসেন এবং সিনিয়র শিক্ষক মোঃ আব্দুল হালিম কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন। এই কর্মশালায় ৪৭ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন থানা কমিটির সদস্য ইয়ূথ লিডার আসাদুজ্জামান লিমন ও দেওয়ান মোহাম্মদ এনায়েতুল ইসলাম। তাদেরকে সহযোগিতা করেন রুবি ও শারমিন। কর্মশালার শেষ পর্যায়ে “আলোর সন্ধান” নামে একটি ইউনিট গঠন করা হয়। সর্বস্মতিক্রমে আনিকা ইবনাত শশীকে কো-অর্ডিনেটর ও সাজিদা আক্তার সূচনাকে নতুন ইউনিটের যুগ্ম কো-অর্ডিনেটর নির্বাচিন করা হয়।

গাইবান্ধার বোয়ালী ইউনিয়ন পরিষদে গত ১লা আগস্ট বিকাল ৩টায় স্থানীয় স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে একটি ও ২ আগস্ট গাইবান্ধা শহরের আব্দুল উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানীয় স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে অপর একটি কর্মশালা ভালোভাবে অনুষ্ঠিত হয়। এ দু’টি কর্মশালায় প্রায় ৮৫ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ নেয়। কর্মশালার শেষ পর্যায়ে দু’টি নতুন ইউনিট গঠন করা হয়। কর্মশালাগুলি সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনে সহযোগিতা করেন আবু নাসের তুহিন।

“আমরা মঙ্গা এলাকার ছাত্র-ছাত্রী আমাদের দেখার মত কেউ নেই। শুধু আর্তচিৎকার ও আহাজারি নয় আমাদের গড়ে ওঠার ও সমৃদ্ধির জন্য আমাদেরকেই দায়িত্ব নিতে হবে। আমরা যদি একটু সচেতন হই তাহলে আমরা নিজেরাই অধিকাংশ সমস্যার সমাধান করতে পারব।” – এ ধরনেরই অভিব্যক্তি ছিল মঙ্গা এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের চোখে-মুখে। গত ৩রা আগস্ট কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী থানার বজরাতবকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এক কর্মশালা শেষে এ ধরনেরই আকাঙ্ক্ষা ও প্রতিশ্রুতি লক্ষ্য করা যায়। কর্মশালায় প্রায় ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রী ও স্কুলের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘ তিন ঘণ্টাব্যাপী আলোচনায় ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সমাজের প্রতি গভীর দায়বদ্ধতাবোধের চেতনা সৃষ্টি হয়। কর্মশালা শেষে সর্বসম্মতিক্রমে সম্রাটকে কো-অর্ডিনেটর করে ১৭ সদস্যের বজরাতবকপুর মডেল স্কুল ইউনিট কমিটি গঠন করা হয়। ইউনিটকে সঠিক পথে এগিয়ে যাবার জন্য সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি করতে স্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ পাঁচজনকে নিয়ে একটি উপদেষ্টা পরিষদও গঠন করা হয়। এ কর্মশালাটি আয়োজন করে দি হাঙ্গার প্রজেক্টের কর্মী তুহিন আলম এবং সেটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট রাতুল।

গত ১৮ আগস্ট গাইবান্ধার পদুম শহর কিন্ডার গার্ডেন স্কুলে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালার শেষ পর্যায়ে ১১ সদস্যবিশিষ্ট পদুমশহর ইউনিট গঠন করা হয়। সবার সম্মতিক্রমে মোঃ আজিজুল হক মিঠুকে কো-অর্ডিনেটর এবং মোছাঃ মিরা সুলতানা মিশুকে যুগ্ম কো-অর্ডিনেটর নির্বাচন করা হয়। কর্মশালায় উপস্থিত অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে রিতু, পাপড়ি ও নাজমুল তাদের অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, “আমরা যে সমাজের সাধারণ মানুষের কাছে – যারা আমাদের জন্য নিরন্তর অবদান রেখে চলেছেন – নানা দিক থেকে ঋণী তা আমাদের জানা ছিল না। আমাদের উচিত পড়ালেখার অবসরে তাদের পাশে দাঁড়ানো।” কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট রাতুল।
image21
গত ২১ আগস্ট রংপুর সরকারি কলেজে কর্মশালার মাধ্যমে একটি নতুন ইউনিট গঠিত হয়। কর্মশালায় বিভিন্ন বিভাগের ৩০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ নেয়। মোঃ মনোয়ারুল ইসলাম মুন-এর পরিচালনায় নতুন এ ইউনিটের কোঅর্ডিনেটর নির্বাচিত হন জাকির আহমেদ।

মোঃ হেদায়েত হোসেন এবং মামুন পারভেজ-এর পরিচালনায় সরকারি বিএল কলেজ ইউনিটের উদ্যোগে গত ২৩ আগস্ট একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। সাতক্ষীরা জেলা সদর থানার এ্যাড. আব্দুর রহমান কলেজে অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় একাদশ-দ্বাদশ ও তৃতীয় বর্ষের ছাত্র-ছাত্রী মিলে মোট ১১৫ জন অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালা শেষে মোঃ রাজিব হাসানকে কো-অর্ডিনেটর করে একটি নতুন ইউনিট গঠন করা হয়। কর্মশালাটি আয়োজনে বিশেষভাবে সহযোগিতা করেন প্রভাষক মোঃ ফারুক হোসেন।

গত ২৪ আগস্ট ইয়ূথ লিডার স্বপ্না ও মিঠুনের পরিচালনায় কুমিল্লার গণ উদ্যোগ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩১ জনকে নিয়ে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

একশ ছাত্র-ছাত্রীর অংশগ্রহণে গত ৩০ আগস্ট হাতিয়া উপজেলাধীন সুখচর ইউনিয়নের বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি কর্মশালা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়। ইয়ুথ লিডার জাকের হোসেন জিকু এবং হাতিয়া উপজেলা ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর ফজলুল হক রয়েলের পরিচালনায় উপস্থিত নারী অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল ৩২ জন। কর্মশালার শেষ পর্যায়ে দুই মাসের একটি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। কর্মশালাটি সম্পন্ন করতে শিক্ষকদের অবদান বিশেষ ভূমিকা রাখে। এ সকল শিক্ষকদের মধ্যে অসীম কুমার দাস, রুবা, মিলু ও কেফায়েত উল্লাহ’র নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

৩০ আগস্ট ফেনীর মহিপালের এজেড খান উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৫ জন ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ১১ সদস্যবিশিষ্ট একটি ইউনিট গঠন করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট রনজিৎ কুমার দাস এবং কুলসুম আক্তার।

১২ সেপ্টেম্বর রাজশাহীর স্থানীয় একটি সমাজসেবী সংগঠন অনির্বান যুব সংঘ-এর সদস্যদের অংশগ্রহণে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয় উপশহরে নূর একাডেমী নামক একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। উক্ত কর্মশালায় সংগঠনটির শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি সংগঠনের সভাপতি মোঃ এ.বি.এম রাসেল এবং নূর একাডেমীর প্রধান মোঃ ইসমাইল সিরাজী উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালা শেষে অংশগ্রহণকারীরা মিজানুর রহমানকে কো-অর্ডিনেটর করে ১১ সদস্যের একটি ইউনিট গঠন করে। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ লিডার মোঃ মাসুদুল করিম মাসুদ, মোঃ রিয়াদ হাসান সজীব এবং মোঃ ইউসুফ আলী।
image64
১৪ সেপ্টেম্বর হাতিয়া উপজেলার চৌমুহনী তবারকিয়া আলিম মাদ্রাসা মিলনায়তনে ইয়ূথ লিডার মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক-এর আয়োজনে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় উপরিউক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন। সকলের মতামতের ভিত্তিতে মোঃ রফিকুল ইসলামকে কো-অর্ডিনেটর এবং তাবাছুম বিনতে ছুমাইয়াকে যুগ্ম কো-অর্ডিনেটর মনোনীত করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ লিডার রফিকুল ইসলাম, নাজমুল ইসলাম রাজু, এমদাদুল ইসলাম, মোঃ আনোয়ার হোসেন, ফিরোজ কবির, মোঃ সবুজ উদ্দিন এবং ফজলুল হক রয়েল।
image40.jpg
দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশের সার্বিক সহযোগিতায় ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার কটিয়াদি উপজেলা ইউনিটের উদ্যোগে আসাদউল্লাহ ভূঞাঁ প্রি-ক্যাডেট এন্ড হাই স্কুলে গত ১৫ সেপ্টেম্বর একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালা শেষে অংশগ্রহণকারী ছাত্র-ছাত্রীরা নিজের স্বপ্ন, সামর্থ্য ও শক্তি নতুন করে নতুনভাবে আবিস্কার করে বিস্মিত হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ লিডার মোঃ মোজাম্মেল হক, তানিয়া নাছরিন বর্ণালী, বোরহান উদ্দীন, নজরুল ইসলাম ও শফিকুল ইসলাম। এতে নবম ও দশম শ্রেণীর ৯০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করেন।

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার বেগম বদরুন্নেছা সরকারি মহিলা কলেজ ইউনিট গত ১৭ সেপ্টেম্বর মর্নিংসান প্রি-ক্যাডেট এন্ড হাই স্কুলে একটি কর্মশালার আয়োজন করে। এতে প্রায় ৫০ জন শিক্ষার্থী স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে। এছাড়া এতে প্রধান শিক্ষক জনাব মিল্টন খন্দকার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সমাজের উন্নয়ন কাজে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। বেগম বদরুন্নেছা ইউনিটের ইয়ূথ লিডার লিপি, মীম ও স্নিগ্ধা’র পরিচালনায় মর্নিংসান প্রি-ক্যাডেট এন্ড হাইস্কুলে একটি ইউনিট গঠন করা হয়। হোসনে আরা মুসিকে নবগঠিত ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর এবং তিলোত্তমা মীমকে ও যুগ্ম কো-অর্ডিনেটর হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। কর্মশালার ফাঁকে ফাঁকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও পরিবেশিত হয়।
image2.jpg
ইয়ূথ এক্টিভিস্ট এম, আর হাসান রশিদের পরিচালনায় গত ২৩ সেপ্টেম্বর স্থানীয় উজ্জীবকদের আয়োজনে সুলতানপুর ইউনিয়ন পরিষদে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ২৩ জন স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। উপরিউক্ত কর্মশালাটি প্রাণবন্ত করে তুলতে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন সত্যেন্দ্র দত্ত, ভিটিআর শাহানা এবং জেলা সমন্বয়ক সিদ্দিক রুবেল ও হালিম।

রংপুরের অভিরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২৪ সেপ্টেম্বর কর্মশালা শেষে বিপুল চন্দ্র রায়কে কো-অর্ডিনেটর এবং রাজিয়া সুলতানাকে সহ-কোঅর্ডিনেটর করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। ইয়ূথ লিডার মহিমা রঞ্জন, জাকিয়া সুলতানা, কারমাইকেল কলেজ ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর মামুনুর রশিদ মামুন ও ইয়ূথ এক্টিভিস্ট রাতুলের পরিচালনায় এতে অতিথি হিসেবে মোছাঃ রশিদা বেগম, অভিরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অহিদুল রহমান ও শ্রী অমল চন্দ্র সরকার উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালাটি আয়োজনের ক্ষেত্রে মহিমা রঞ্জন ও অতিন্দ্র বিশেষভাবে ভূমিকা পালন করেন।

গত ২৬ শে সেপ্টেম্বর লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার মদাতী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি কর্মশালা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়। কর্মশালাটির উদ্বোধন করেন অত্র ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য জনাব মোঃ সহিদুল ইসলাম। সুভাষ চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে এবং মোক্তাদিদ বিল্লাহ ও নরেশ চন্দ্র রায়ের পরিচালনায় কর্মশালায় প্রায় ৮৫ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে।

রিপোর্ট: মোঃ মাসুদুল করিম (মাসুদ), জনি, ওয়াহিদা আক্তার কুলসুম, অনিক, জামিল আক্তার, শারমীন, এম, এম, আলামীন, নাঈমা সুলতানা রুবী, রাতুল, মোছাঃ মারিয়া হক শিম্মি, ফজলুল হক রয়েল, মোজাম্মেল হক, বোরহান উদ্দীন, লিপি ও আঃ হালিম।

আমরা করব জয়-৬৪

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s