কালিহাতী পৌরসভায় প্রথমবারের মত গণিত উৎসব

গত ৩১ আগস্ট টাঙ্গাইল জেলার কালিহাতী উপজেলার কালিহাতী পৌরসভার কালিহাতী কলেজে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে প্রথমবারের মত গণিত উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। ‘সুজন’, কালিহাতী উপজেলা কমিটি ও ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এ গণিত উৎসবে পৌরসভার ২৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১৩০০ ছাত্র-ছাত্রী ও প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক এবং অভিভাবকসহ প্রায় পাঁচ’শ জন অংশগ্রহণ করেন।

image29

সকাল ৮.৩০টায় জাতীয় সংঙ্গীতের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে উৎসবের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। এ সময় উপজেলা (ভারপ্রাপ্ত) নির্বাহী কর্মকর্তা, উৎসব কমিটির আহবায়কসহ বিশিষ্ট জনেরা উপস্থিত ছিলেন। পরীক্ষা শেষে গণিত মঞ্চে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান ড. সুব্রত মজুমদার। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ‘সুজন’ জেলা কমিটির সদস্য-সচিব অধ্যাপক বাদল মাহমুদ। এছাড়া অনুষ্ঠানটি সফল করে তুলতে বাপন রায়হান, সুবোধ কুমার গোপালসহ ইয়ূথ সদস্যরা বিশেষভাবে ভূমিকা পালন করে।

image33
“গণিত নিয়ে খেলা করি, বিশ্বটাকে জয় করি” – এ স্লোগানকে সামনে রেখে ২৯ জুলাই সকাল ৮.৩০ মিনিটে ১২টি স্কুলের প্রায় ৭০০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভরতখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়। সকাল ৯.০০টা থেকে ৫০ মিনিটের পরীক্ষা ভরতখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং ভরতখালী বালিকা বিদ্যালয় এ দুইটি কেন্দ্রে আনন্দঘন পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়।

পরীক্ষা শেষে সকল ছাত্র-ছাত্রীরা ভরতখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয় সেখানে প্রশ্নোত্তর, আলোচনা এবং পুরস্কার বিতরণী পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা পর্বে কামরুল ইসলাম, হেলেনা খাতুন, হরি প্রসাদ, স্বপ্না রানী প্রমুখ শিক্ষক-শিক্ষিকারা তাদের অভিমত ব্যক্ত করে বলেন যে, এ ধরনের গণিত উৎসবের মাধ্যমে সত্যিকারার্থেই আমাদের ছেলে-মেয়েদের মাঝে পড়াশুনার প্রতি আরো আগ্রহ বাড়বে।
image39
প্রধান অতিথি সাঘাটার উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা জনাব গুল্লাল সিনহা তার অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, আমি এক সময় গণিতে খুব দুর্বল ছিলাম। আমাদের সময় যদি এ ধরনের ব্যবস্থা থাকত তাহলে আমরা নিশ্চয়ই আরো ভালো করতাম। তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদের ক্ষেত্রে এ ধরনের সুযোগ তৈরি হয়েছে তাই এ ধরনের উৎসবে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে তোমরা অনেক ভালো করবে এটাই আমি বিশ্বাস করি।

এছাড়া আরো যে সকল স্থানে সফলভাবে গণিত উৎসব সম্পন্ন হয় সেগুলো হলো:

তারিখ স্থান আংশগ্রহণকারী
০৩.০৭.০৮ সূতী ভি.এম. পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, গোপালপুর, টাঙ্গাইল প্রায় ৭০০ জন
০৪.০৭.০৮ পোড়াদহ, কুষ্টিয়া প্রায় ৫৮০ জন (১৫টি প্রতিষ্ঠান)
০৫.০৭.০৮ হেমনগর শশীমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, হেমনগর, টাঙ্গাইল প্রায় ৪৫০ জন
২৮.০৮.০৮ ইবরাহীম খাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ভূয়াপুর, টাঙ্গাইল প্রায় ৮৫০ জন

রিপোর্ট: জনি ও সৈয়দ মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন

আমরা করব জয়-৬৪

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s