পাঠচক্র

প্রচেষ্টা ইউনিটের আয়োজনে গত ১১ এপ্রিল ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই’ শীর্ষক একটি পাঠচক্র অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইউনিটের সকল সদস্য অংশগ্রহণ করেন। পুরো অনুষ্ঠানে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন সিলেট জেলার আঞ্চলিক সমন্বয়কারী নাসিরউদ্দিন। পাঠচক্রে সকলের আলোচনার ভিত্তিতে একটি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে উঠে আসে যে, কোন অন্যায়কেই প্রশ্রয় দেয়া ঠিক নয়। কারণ একটা অন্যায় আরেকটি অন্যায়ের জন্ম দেয় আর এভাবেই সমাজে অন্যায়ের বিস্তার ঘটে। অংশগ্রহণকারীরা সকলেই সোচ্চার কন্ঠে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবি করে। তারা বলে, তাদের বিচার না হলে আমাদের স্বাধীনতা অনেকাংশে অপূর্ণই থেকে যাবে। সমাজের নৈতিক অবক্ষয় দূর করার স্বার্থেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অবশ্যই জরুরি। তারা বাংলাদেশের সেক্টরস কমান্ডার ফোরামের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার করার বিনীত অনুরোধ জানায়। এই পাঠচক্রে প্রচেষ্টা ইউনিটের সাথে সিলেট এম.সি. কলেজ ইউনিট ও শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের বন্ধুরা ও সহযোগিতা করেছিল যার ফলশ্রুতিতে পাঠচক্রটি অত্যন্ত সফল হয়ে ওঠে।

সিলেটের সুরমা নদীর পাড় ঘেঁষে দাঁড়িয়ে আছে ঐতিহাসিক সারদা হল। বিকাল বেলা নানা বয়সী, নানা পেশার মানুষ এখানে আসে প্রকৃতির শোভা দেখতে। গত ৩০ মে আমরা প্রচেষ্টা ইউনিটের ইয়ূথ সদস্যরা একত্রিত হয়েছিলাম একটি পাঠচক্রে। পাঠচক্রের বিষয় ছিল ‘মাতৃভাষার চর্চা’। এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সরকারী মহিলা কলেজের প্রভাষক উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক জনাব ফখরুদ্দিন পারভেজ ও আইএফআইসি ব্যাংকের কর্মকর্তা মোঃ মুন্না। মাতৃভাষাকে কীভাবে বিশ্বের দোরগোড়ায় পৌঁছানো যায় এটাই ছিল আলোচনার প্রধানতম বিষয়। আমাদের বাংলাভাষার নিজস্ব সমৃদ্ধ ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও ঐতিহাসিক পটভূমি রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে পাশ্চাত্য ধাঁচের কিছু মিডিয়ার কল্যাণে বাংলার সাথে ইংরেজির মিশালে ‘বাংলিশ’ ভাষার প্রচলন শুরু হয়েছে। যা আমাদের ভাষার ঐতিহ্যের জন্য হুমকি স্বরূপ। পাঠচক্রে সকলের আলোচনার মধ্য থেকে উঠে এসেছে যে, আমরা আমাদের ভাষার শুদ্ধ চর্চা করব। ইংরেজি আন্তর্জাতিক ভাষা, তাই এই ভাষা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ইংরেজি শিখব। কিন্তু কোনভাবেই বাংলা ইংরেজি মিশিয়ে বাংলা ভাষাকে বিকৃত করব না। আমরা নিজেরা এ ব্যাপারে সচেষ্ট থাকব ও অন্যকে সচেতন করতে ভূমিকা রাখব। পাঠচক্র শেষে সারা মাসের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা করা হয় ও পরবর্তী কর্ম পরিকল্পনা ঠিক করা হয়। পাঠচক্র ও মাসিক সভাটি সঞ্চালন করেন ইয়ূথ লিডার রজত। আরো উপস্থিত ছিলেন দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী মোঃ নাসির উদ্দিন। আয়োজনে বিশেষভাবে ভূমিকা রাখেন বিশ্বজিৎ, অর্জুন, সুমন, জনি, জামাল, রিপটর, হালিম, সাধন ও খালেদ।

রিপোর্ট: বিশ্বজিৎ চন্দ ও মাহবুব হোসেন রনি।

আমরা করব জয়, ৬৩তম সংখ্যা

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s