ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং


ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের আয়োজনে ৭-১০ মে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রিয় ক্যাফেটেরিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ৪১তম ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং। চার দিনব্যাপি এই ট্রেনিং এ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ৩৬ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণের প্রথম দিনে একটি বিশেষ সেশনে উপস্থিত ছিলেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এএইচএম মোস্তাফিজুর রহমান। প্রশিক্ষণ শেষে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ করা হয়। সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক জনাব আ ন ম সালেহ্। সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, “বর্তমান এই দুঃসময়ে কেবল তোমরাই পারো দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে। কারণ তোমরা গভীর আত্মজিজ্ঞাসার মধ্য দিয়ে নিজেদেরকে প্রস্ফুটিত করছো এবং সমাজের জন্য নিজেদেরকে একজন স্বেচ্ছাব্রতী নেতা হিসেবে কাজ করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছ।” প্রশিক্ষণ শেষে সকল অংশগ্রহণকারী সমাজের জন্য নিবেদিতভাবে কাজ করার অঙ্গিকার ব্যক্ত করে ও পরবর্তী দুই মাসের কর্মপরিকল্পনা ঠিক করে। প্রশিক্ষণটি আয়োজনে ছিলেন মাহমুদ ও সোহেল। প্রশিক্ষণে বিভিন্ন সেশন পরিচালনা করেন মাহবুব হাসান মাসুদ, প্রণব আচার্য্য, ফিরোজ আল মামুন, মারিফুল হক শাওন এবং দি হাঙ্গার প্রজেক্টের কর্মী বিধান চন্দ্র পাল ও সুব্রত কুমার পাল।

১৬-১৯ মে, কক্সবাজার শহরের বৌদ্ধমন্দির সংলগ্ন আর ডি এফ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ৪৩তম ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং। কক্সবাজার শহরের ছয়টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান – আমেনা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কক্সবাজার সরকারী কলেজ, সৈকত বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সাহিত্যিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পাইলট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও কক্সবাজার টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের ৪৯ জন ছাত্র-ছাত্রী এই প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করে। যার মধ্যে ৪০ জন ছিল ছাত্রী। প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কমিশনার জনাব আশরাফুল হুদা সিদ্দিকী জামশেদ। তিনি বলেন, “ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সামাজিক ায়বদ্ধতাবোধ জাগিয়ে তোলার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে বিনির্মাণ করতে হবে। ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার এ কাজটি করছে জেনে আমি আনন্দিত।” প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অংশগ্রহণকারীদের সনদপত্র প্রদান করেন। জনাব মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ তার সংক্ষিপ্ত অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, “তরুণদের অনুপ্রাণিত করতে পারলে এ সমাজ পরিবর্তিত হবে। তবে তরুণদের দায়িত্ব নিতে হবে। তরুণদের সকল কাজে সম্পৃক্ত থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করে অংগ্রহণকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তোমরা হলে দ্বিতীয় প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযোদ্ধাদের অসমাপ্ত কাজ তোমাদেরকেই করতে হবে।” চার দিনের বিভিন্ন সময়ে কক্সবাজারের একদল সম্মানিত ব্যক্তিত্ব প্রশিক্ষণে উপস্থিত হয়ে অংশগ্রহণকারীদের অনুপ্রাণিত করেন। প্রশিক্ষণে সহায়ক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন
স্বেচ্ছাব্রতী প্রশিক্ষক জনাব মাহবুবুর রহমান, জনাব রফিকুল ইসলাম, ইয়ূথ এক্টিভিস্ট ইসমাইল, সাইফুল, সুরভী, নাছিমা ও দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী মোঃ মাজেদুল ইসলাম। প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাপনায় সহযোগিতা করেন উজ্জীবক আজাদ, ইসমাইল, নীপাসহ আরো
অনেকে।

২৪-২৭ মে, করিমগঞ্জ আশুতিয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চার দিনব্যাপী ৪৫তম ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৭টি ইউনিটের ৬৪ জন সদস্য অংশগ্রহণ করেন। উদ্বোধনী দিনে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হাদিউল ইসলাম কাঞ্চন, স্থানীয় উজ্জীবক ও উপজেলা ‘সুজন’ কমিটির সভাপতি আবু আনিস ফকির, উজ্জীবক ও পৌরসভা ‘সুজন’ কমিটির সভাপতি জিল্লুর রহমান টিপু, নারীনেত্রী তাসলিমা আক্তার ও নীলুফার ইয়াসমিন, ‘দৈনিক খবর’ পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর সিরাজী ও দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী জয়ন্ত কর। এই প্রশিক্ষণে ছাত্র-ছাত্রীরা আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে সুনেতৃত্বের গুণাবলী অর্জন ও স্বনির্ভর বাংলাদেশ গড়ে তুলতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়। তারা স্বপ্ন দেখে, তাদের দ্বারা উন্মোচিত হবে বাঙ্গালী জাতির নতুন দিগন্ত। এই লক্ষ্যে ইউনিটভিত্তিক আগামী এক মাসের কর্মপরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়। প্রশিক্ষণটি পরিচালনা করেন পলাশ কান্তি পাল, আল-মারুফ, এ.কে. মানিক, শফিক, এনায়েত, লিমন, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী জয়ন্ত কর ও তহুরুল হাসান টুটুল। আয়োজনে বিশেষভাবে ভূমিকা পালন করেন হামিদুল, সোহাগ, বুলবুল, মুজিবুর, ইফেল, শহীদুল, মীম, করুনা, সানজিদা,
দ্বীন মোহাম্মদ ও রাসেল।

আত্মশক্তির উন্মেষ, আত্মমর্যাদাপূর্ণ ভবিষ্যৎ সৃষ্টি ও নতুন নেতৃত্বের বিকাশের লক্ষ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও প্রাণচাঞ্চল্যের মধ্য দিয়ে গত ২৬-২৯ মে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ঝিনাইদহ সদর ইউনিটের উদ্যোগে ঝিনাইদহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ৪৬তম
ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলার ৪টি ইউনিটের ৫২ জন সক্রিয় সদস্য অংশগ্রহণ করেন। চার দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ শেষে অংশগ্রহণকারীরা সামাজিক দায়বদ্ধতাবোধে উজ্জীবিত হয়ে প্রত্যেকে ব্যক্তিগতভাবে আগামী এক মাসের সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেন। যার মধ্যে মেধা ও সৃজনশীলতা বিকাশে বিভিন্ন উদ্যোগ, সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনে ভূমিকা রাখা, মানসম্মত শিক্ষা ও নিরক্ষরতা দূরীকরণে নানা কর্মসূচি হাতে নেয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। প্রশিক্ষণটি পরিচালনা করেন শাহীন, অশোক, লোভা, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী খোরশেদ আলম ও বিধান চন্দ্র পাল। সমন্বয়কারীর ভূমিকা পালন
করেন ইউনিট কোঅর্ডিনেটর ফারুক হোসেন শাওন। তাকে বিশেষভাবে সহযোগিতা করেন স্মৃতিরেখা, লিটন, নাহার, বাশার, নাসরিন, সুমাইয়া, হেদায়েত ও আমিনুল। প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জেলা শিশু বিষয়ক
কর্মকর্তা জনাব মোঃ আয়ূব হোসেন, আদর্শ পাঠশালা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শাহিনা আফরোজ, পদ্মার নির্বাহি পরিচালক হাবিবুর রহমান ও স্বেচ্ছাব্রতী প্রশিক্ষক নাজিমউদ্দিন জুলিয়াস।

২৮-৩১ মে রাজশাহী সিটি ইউনিটের আয়োজনে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ৪৪তম ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং। প্রশিক্ষণটির উদ্বোধন করেন এর পরিচালক ডঃ স্বপন কুমার দত্ত। এতে রাজশাহী সিটি ইউনিটের ২৮ জন ছাত্র ও ১২ জন ছাত্রী অংশগ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণটি পরিচালনা করেন ইয়ূথ এক্টিভিস্ট জামিল আকতার, তারেকুল ইসলাম জনি, ফিরোজ আল মামুন, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্মী জাকারুল ইসলাম, সুব্রত কুমার পাল ও মোঃ মাজেদুল ইসলাম। আয়োজনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেনতানভীর আহমেদ, আসাদুল ইসলাম, শামসুজ্জামান, রাশেদ নিজাম ও মাহবুব।

রিপোর্ট: মাহবুব হোসেন রনি, মোঃ আসাদুজ্জামান লিমন, অশোক বিশ্বাস, মোঃ মাহবুবুল আলম
ও মোঃ মাজেদুল ইসলাম।

এপ্রিল-জুন পর্যন্ত আরও যে সকল স্থানে ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং সম্পন্ন হয়েছে তার তালিকা
নিম্নে দেয়া হল:

তম তারিখ স্থান অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা প্রশিক্ষক
৩৯তম ১৮-২১ মে সূতী ভি.এম. উচ্চ বিদ্যালয়, গোপালপুর, টাঙ্গাইল ছাত্র- ২৪ ছাত্রী- ১৩ মোট- ৩৭ মারুফ, নাসির ও টুটুল
৪২তম ০৩-০৬ মে কুষ্টিয়া মিশন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, কুষ্টিয়া ছাত্র- ৩৪ ছাত্রী- ১৬ মোট- ৫০ অশোক, মাহিন, সবুর, বাদশা, টুটুল ও মাজেদ
৪৭তম ১৮-২১ জুন আল-ফয়সাল ইন্টান্যাশনাল হোটেল, চট্টগ্রাম ছাত্র- ৩৭ ছাত্রী- ৫ মোট- ৪২ বজলুর রহমান, বাশার ও মাজেদ
৪৮তম ১৬-১৯ জুন নেত্রকোনা চন্দ্রনাথ উচ্চ বিদ্যালয়, নেত্রকোনা ছাত্র- ৩০ ছাত্রী- ১৭ মোট- ৪৭ সব্যসাচী, সুলতান ও টুটুল
৯তম ২৫-২৮ জুন প্রাথমিক শিক্ষক মিলনায়তন, মনিরামপুর, যশোর ছাত্র- ৩৭ ছাত্রী- ২৮ মোট- ৬৫ শাহীন, লোভা ও টুটুল

আমরা করব জয়, ৬৩তম সংখ্যা

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s