সারাদেশে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন

1-women-day-rally-in-sylhet-with-sylhet-city-mayor-badar-uddin-ahamed1

গত ৮ই মার্চ বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস। ১৮৫৭ সালের এ দিনে নিউইয়র্ক শহরের বস্ত্রকলের নারী শ্রমিকেরা বেতন বৃদ্ধি, কাজের সময় নির্ধারণ ও কর্মক্ষেত্রের মান উন্নয়নের দাবীতে নেমেছিল রাজপথে। সেদিন মালিক শ্রেণীর অন্যায় আচরণের বিরুদ্ধে অধিকার আদায়ের দাবীতে প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠেছিল শ্রমিক সমাজ। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯১০ সালে নারী নেত্রী ক্লারা জেটকিনের প্রস্তাব অনুসারে কোপেনহেগেনে অনুষ্ঠিত কংগ্রেস থেকে ৮ই মার্চ নারী দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। নারী দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‍”পরিবারই হোক নারী অধিকার নিশ্চিত করার প্রথম সোপান”। এ শ্লোগানকে সামনে রেখে দিনটিকে পালন করতে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশের সদস্যরা সারাদেশে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। এ লক্ষ্যে সারাদেশে ২৫টি জেলার ৩০টি ইউনিট পঞ্চাশটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠাগুলোর মধ্যে রয়েছে আলোচনা সভা, র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতা, সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মতবিনিময় সভা, পাঠচক্র প্রভৃতি। এ সকল অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শত শত মানুষের মধ্যে নারী দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরা সম্ভব হয়েছে। যে সকল ইউনিট নারী দিবস পালন করেছে তাদের মধ্য থেকে কয়েকটি ইউনিটের গৃহীত কর্মসূচি তুলে ধরা হলো।

পিরোজপুর সদর ইউনিট : আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে পিরোজপুর সদর ইউনিট একাধিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল র‌্যালি এবং সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতা। প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করে পিরোজপুর মহিলা টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজের ছাত্রী সোনিয়া আফরিন নুপুর। দ্বিতীয় স্থান লাভ করে শিপ্রা রানী পাল, তৃতীয় স্থান লাভ করে সোনালী রানী সাহা। এছাড়াও আরো নয় জনকে পুরস্কৃত করা হয়।

ঘাটাইল ইউনিট, টাঙ্গাইল : ঘাটাইল ইউনিট নারী দিবস উপলক্ষে র‌্যালি, আলোচনা সভা, চিত্রাঙ্কন, রচনা এবং বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। র‌্যালিতে জি বি জি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ব্রাহ্মণ শাসন মহিলা কলেজ, ঘাটাইল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ঘাটাইল গণ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষক মন্ডলীসহ মোট দুই শতাধিক অংশগ্রহণকারী অংশগ্রহণ করে। এছাড়া এ সময় ঘাটাইলের তিনজন মহিলা পৌর কমিশনার উপস্থিত ছিলেন। এদিন আলোচনা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। পুরস্কার বিতরণ করেন পৌর চেয়ারম্যান জনাব আব্দুর রশিদ মিয়া। সদস্যদের মধ্যে যারা বিভিন্ন দায়িত্বে নিয়োজিত ছিল তারা হলো মিনা, মিলি, শর্মিলী, স্বর্ণালী, হাসি, নিপা, শামীম, প্রদীপ, মাসুম, রফিক ও রাজেশ।

ময়মনসিংহ সদর ইউনিট : নারী দিবসে ময়মনসিংহ সদর ইউনিট চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনা সভায় আলোচক হিসেবে ছিলেন আমীর আহমেদ চৌধুরী রতন, প্রধান শিক্ষক, মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়, সুলতান উদ্দিন খান, সভাপতি, রিপোটার্স ইউনিট ময়মনসিংহ, রাজিয়া আমীন, সহকারী শিক্ষক, মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়। আলোচনা সভায় মোট উপস্থিতি ছিল ৬৮ জন। চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়ে। এতে মোট ৩৭ জন প্রতিযোগি অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতার বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গভ: ল্যাবরেটরী হাই স্কুলের সহকারী শিক্ষক বাবু তাপস মজুমদার, মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বাবু নির্মল মোদক। অনুষ্ঠানের সার্বিক দায়িত্ব পালন করে সত্যজিৎ ঘোষ, সব্যসাচী সরকার, অলক সরকার, ইলিয়াস উদ্দিন, মিতা সাহা, মুক্তা রানী সাহা, রাজিবুল হাসান, সুজিত পাল এবং সুব্রত কুমার পাল।

মিরপুর ইউনিট, ঢাকা : আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে মিরপুর ইউনিট গত ১৬ এবং ১৭ মার্চ প্রথম আলো কেজি স্কুল ও ডলফিন স্কুল প্রাঙ্গনে দুই দিনব্যাপী সহপাঠ, চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল – কবিতা আবৃতি, নৃত্য, নির্ধারিত বক্তৃতা, সঙ্গীত, অভিনয়, জ্ঞান জিজ্ঞাসা প্রভৃতি। বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় প্রায় শতাধিক ছেলে-মেয়ে অংশগ্রহণ করে। চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতায় প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ স্থান লাভ করে যথাক্রমে ফয়েজ নুজহাত, হেনা, কুসুম মল্লিক, নাজনীন, সাদিয়া তাজমিন, মোবাশ্বিয়া আতিয়া। কবিতা আবৃতিতে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয় সুইটি, অমি ও প্রেমা। নৃত্যে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয় ঝরা, পূজা, সাবিহা নিকীতা এবং দীপা। নির্ধারিত বক্তৃতায় প্রথম স্থান লাভ করে ফাতিমা জোহরা পিয়া, সাফিন খান দ্বিতীয় এবং তৃতীয় হয় যুগ্মভাবে দুই জন – নুরজাহান আলো ও ফয়েজ নুজহাত। সঙ্গীতে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় স্থান লাভ করে শারমীন আক্তার, নিষ্টা পোদ্দার এবং সাবিহা সুলতানা নিকীতা। অভিনয়ে প্রথম দুই জন – সুমা অমি, দ্বিতীয় হয়েছে প্রেমা, তৃতীয় হয়েছে যুগ্মভাবে আনিকা তাসনিম ও মুক্তা। জ্ঞান জিজ্ঞাসায় বিজয়ী দলের সদস্যরা হচ্ছে মাহবুব হাসান, ফাতেমা তুজ জোহরা পিয়া এবং জয়ন্তী দাস। প্রতিযোগিতা সকলেই প্রথম আলো কিন্ডার গার্টেন, মিরপুর ল্যাবরেটরী স্কুল, ডলফিন কিন্ডার গার্টেন, বাগবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিভিন্ন ক্লাসের ছাত্র-ছাত্রী।

নোয়াখালী ইউনিট : নারী দিবসে এ ইউনিট শহরে র‌্যালি এবং আলোচনার আয়োজন করে। আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল “বর্তমান সমাজে নারীদের অধিকার ও অবস্থান”। এতে ইউনিটের সদস্যরা ছাড়াও বিদ্যা নিকেতন স্কুলের শিক্ষিকা হাসিনা উপস্থিত ছিলেন।

2-iwd_noakhali

সিরাজগঞ্জ সদর ইউনিট : সিরাজগঞ্জ কালেকটরেট স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এতে ৪২ জন প্রতিযোগি অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় শ্রেণী থেকে প্রথম স্থান লাভ করে রায়হান আহমেদ এবং দ্বিতীয় ফৌজিয়া বিনতে রশীদ। চতুর্থ শ্রেণী থেকে প্রথম স্থান অধিকার করে অনন্যা রহমান এবং দ্বিতীয় হয় ইভান ইসলাম খান। এটি সার্বিক সমন্বয়ের দায়িত্বে ছিল ন্যাশনাল ইয়ূথ ফোরাম সদস্য মাহবুব হাসান মাসুদ।

কুমিল্লা সদর ইউনিট : ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার, কুমিল্লা সদর ইউনিটের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের পাশাপাশি নিজস্ব ব্যানারে র‌্যালির আয়োজন করে। র‌্যালিটি কুমিল্লা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে টাউন হল ময়দানে এসে শেষ হয়। পরবর্তীতে টাউন হলে একটি আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

3-iwd_comilla

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিট : নারী দিবসে ইউনিট পাঠচক্র এবং রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। রচনা প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল “বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের নারী”। প্রতিযোগিতায যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান লাভ করে হেলেনাবাদ স্কুলের ছাত্র রুবাইত আলম, অগ্রণী স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী শ্রাবন্তী এবং লক্ষ্মীপুর বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী সাথী। এতে সার্বিক সহযোগিতা করে ফিরোজ, শাওন, হালিমম বহ্নি, রুবি, রানা ও শিপন। একই বিষয়কে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠিত হয় পাঠচক্র। এতে মূল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক রুহুল আমীন। এতে ইউনিটের ৪৫ জন সদস্য অংশগ্রহণ করে। এছাড়াও অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক যুগান্তরের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার প্রতিনিধি জনাব জোহা হক। এতে প্রবন্ধ পাঠ করে নমিতা দত্ত বহ্নি। পাঠচক্রে নারীর বর্তমান অবস্থান পরির্বতনের দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করা হয়।

41

সিলেটের বিভিন্ন ইউনিট: সিলেটের জালালাবাদ ইউনিট, সুরমা ইউনিট, একতা ইউনিট, আলোর দিশারী ইউনিট, সিটি ইউনিট, সিলেট পি ডি বি ইউনিট সদস্যরা যৌথভাবে র‌্যালির আয়োজন করে। এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কমিশনার জেবুন্নাহার শিরিন ও মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। এছাড়াও জার্মান টেকনিক্যাল ইউনিটের আয়োজনে একটি র‌্যালিতে ১৩টি সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা অংশগ্রহণ করে। অংশগ্রহণকারী সংস্থাগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ উপস্থিতি ও সুশৃঙ্খল অংশগ্রহণকারী সংগঠন হিসেবে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার প্রথম পুরস্কার লাভ করে। এছাড়াও নারী দিবস উপলক্ষে ৭ দিনব্যাপী মেলায় সিলেট জালালাবাদ ইউনিট হস্তশিল্প প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করে। এ ছাড়াও বিভিন্ন ইউনিট নারী দিবসে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এর মধ্যে রংপুর কারমাইকেল কলেজ ইউনিট, মোহনপুর পার্থিব ইউনিট, ঝিনাইদহ সদর ইউনিট, ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ ইউনিট, চকমধু চৌঘরিয়া, চন্দিয়া ইউনিট, ফুলছড়ি ইউনিট, মহাকাল ইউনিট, লক্ষীপাশা ইউনিট, সিতাকুন্ড ইউনিট, দাগনভূঁইয়া ইউনিট, নরসিংদী সদর ইউনিট, বরগুনা সরকারি কলেজ ইউনিট অন্যতম।

রিপোর্ট পাঠিয়েছে: জোনায়েদ মহসিন অনি, শামীম, সুব্রত, বিপ্লব কুমার, আশিকুল ইসলাম, মাহবুব হাসান মাসুদ, সুর্বণা, শাওন, সিপন এবং রিপন।

আমরা করব জয়-৪৬

Advertisements