যেন তর্কে ভাঙ্গি মগজের কারফিউ

syl-1-22

বিভিন্ন ইউনিট থেকে আসা সদস্যদের মধ্য থেকে নির্বাচিত সদস্যদের নিয়ে আয়োজন করা হয় উপস্থিত বক্তৃতা ৷ এর বিষয়গুলো ছিল “আমার সিলেট”, “ক্রিকেট বাংলাদেশ”, “জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম”, “আত্মশক্তি”, “কন্যাশিশুর অধিকার” প্রভৃতি ৷ আর যারা উপস্থিত বক্তৃতায় অংশগ্রহণ করে তারা হলো সিলেট একতা ইউনিটের এসএম কাইয়ুম, শফিকুল ইসলাম তুহিন, পিডিবি ইউনিটের দীপক ধর, আলোর দিশারী ইউনিটের নজরুল ইসলাম, জালালাবাদ ইউনিটের মাহফুজুল হক রনি ৷ এতে বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক সমাচার পত্রিকার সাংবাদিক আবালিছ আহমেদ চৌধুরী, কবি ও সাংবাদিক আবুল মুকিত অপি ৷ উপস্থিত বক্তৃতায় প্রথম স্থান লাভ করে জালালাবাদ ইউনিটের সদস্য মাহফুজুল হক রনি এবং দ্বিতীয় স্থান লাভ করে সুরমা ইউনিটের কোঅর্ডিনেটর শফিকুল ইসলাম তুহিন ৷ বিজয়ীদের ক্রেস্ট, সনদ দিয়ে পুরস্কৃত করা হয় ৷

syl-1-1

এরপরই শুরু হয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা ৷ এর বিষয় ছিল “জনসংখ্যা নয়, দুর্নীতি বাংলাদেশের মূল জাতীয় সমস্যা” ৷ বিতর্কের পক্ষে অবস্থান করে সিলেট সুরমা ইউনিটের সদস্য জাবেদ আহমেদ, নিজাম আল দীন এবং দলনেতা তুহিন ৷ বিপক্ষে অবস্থান করে সিলেট একতা ইউনিটের সদস্য লিপি বেগম চৌধুরী, সাজেদা আক্তার মমতা এবং দলনেত্রী নাজনীন নাহার রিমা ৷ বিতর্ক পরিচালনার দায়িত্ব পালন করে জালালাবাদ ইউনিটের সদস্য মনি ৷ এতে সভাপতিত্ব করেন সিলেট এমসি কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জনাব সালেহ্ আহমেদ ৷ প্রত্যেক দলের বক্তারা নিজ নিজ অবস্থান থেকে তুমুল তর্কে মেতে উঠে ৷ এক পর্যায়ে আসে সেই প্রত্যাশিত জয় বিজয়ের ফলাফল ৷ এতে বিজয়ের গৌরব অর্জন করে সিলেট একতা ইউনিট এবং শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় পক্ষের দলনেত্রী নাজনীন নাহার রিমা ৷

আমরা করব জয়-৪৫

Advertisements

One comment

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়েছে।