ব্রশিউর

ইয়ূথের ব্রশিউর

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ
ছাত্র-ছাত্রীদের স্বেচ্ছাব্রতী নেতৃত্বে ক্ষুধামুক্ত ও আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ সৃষ্টির সামাজিক গণজাগরণ

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার কি-
ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার একটি বিশ্বাস। একটি প্রতিশ্রুতি। বাংলাদেশের জন্য সম্ভাবনাময় ভবিষ্যতে বিশ্বাসী একটি সামাজিক আন্দোলন। ক্ষুধামুক্ত আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ সৃষ্টির প্রত্যাশার ভিত্তিতে এ আন্দোলন পরিচালিত। ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ ১৯৯৫ সালে যাত্রা শুরু করার পর থেকে এখন তা সারা দেশে অন্যতম একটি স্বেচ্ছাব্রতী আন্দোলনে রূপ নিয়েছে।
ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার স্বেচ্ছাব্রতী সংস’া দি হাঙ্গার প্রজেক্টের অনুপ্রেরণায় সৃষ্ট একটি ছাত্র সংগঠন। ছাত্র-ছাত্রীদের নেতৃত্বেই এ সংগঠন পরিচালিত। এ সংস’ার প্রতিটি সদস্য নিজের ভাগ্য নিজে গড়তে এবং অন্যকে সহায়তা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।   
ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ গড়তে হলে ছাত্র-ছাত্রীদের আত্মবিকাশ প্রয়োজন। প্রয়োজন এ ক্ষুধামুক্তির আন্দোলনে তাদের বলিষ্ঠ পদক্ষেপ ও অবদান।
ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য-
ক.   ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা ও সৃজনশীলতার সর্বাধিক বিকাশের লক্ষ্যে তাদেরকে প্রণোদিত ও সংগঠিত করা;
খ.    তাদের মধ্যে সামাজিক দায়বদ্ধতা বোধ সৃষ্টি করে সমাজ সচেতন নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা;
গ.   তাদের মধ্যে আত্মনির্ভরশীলতা অর্জনের প্রত্যয় সৃষ্টি করা;
ঘ.  সংগঠনের প্রতিটি সদস্যকে সফল, স্বয়ংক্রিয় ও স্বেচ্ছাব্রতী নেতা হয়ে ওঠার লক্ষ্যে ক্ষমতায়িত করা; এবং
ঙ.  প্রত্যেককে আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক হয়ে উঠতে উৎসাহিত করা। 
ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের অন্যতম উদ্দেশ্য হলো যে, ছাত্র-ছাত্রীরা পড়ালেখার পাশাপাশি তাদের অবসর সময়ে সমাজ গঠনের কাজে নিজেদের নিয়োজিত করবে এবং উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে। যার মাধ্যমে আমাদের সবার জন্য একটি সমৃদ্ধ ও মর্যাদাপূর্ণ ভবিষ্যত সৃষ্টি হবে।

ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের কার্যক্রম
বর্তমানে সারা দেশে এক লক্ষাধিক ছাত্র-ছাত্রী ক্ষুধামুক্ত আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ গঠনের প্রচেষ্টাকে সামাজিক আন্দোলনে পরিণত করার কাজে লিপ্ত। এ লক্ষ্যে তারা নানামুখী সৃজনশীল কার্যক্রম পরিচালনা করছে। আর এই কাজের ভিত্তি হচ্ছে সামাজিক দায়বদ্ধতাবোধ। মূলত কর্মশালা ও বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে দায়বদ্ধতাবোধ সৃষ্টি করা হয়।
ক্ষুধামুক্তির এই গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলনের একজন স্বয়ংক্রিয় ও স্বেচ্ছাব্রতী সৈনিক হিসেবে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্ষমতায়িত করতে ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং পরিচালিত হয়। যার মাধ্যমে তাদের মধ্যে একটি ক্ষুধামুক্ত আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ গড়ার সমন্বিত প্রত্যাশা সৃষ্টি হয়। এ প্রত্যাশা অর্জনে নিবিষ্ট থাকতে তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয় এবং কিছু সুস্পষ্ট কার্যক্রম হাতে নেয়।  

সামাজিক আন্দোলনকে বেগবান করতে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের সদস্যরা যে সকল সুস্পষ্ট কার্যক্রম হাতে নেয়, তার মধ্যে অন্যতম হলো ‘প্রত্যাশা, প্রতিশ্রুতি ও কার্যক্রম’ শীর্ষক কর্মশালা পরিচালনা। দেশব্যাপী পরিচালিত এ সকল কর্মশালার মাধ্যমে অন্যের মধ্যে সামাজিক দ্বায়বদ্ধতা বোধ সৃষ্টি হয়, সকলের মধ্যে আত্মনির্ভরশীলতা অর্জনের প্রত্যাশা জাগ্রত হয় এবং তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়। যার ভিত্তিতে নানামুখী কার্যক্রম গৃহীত হয় এবং পরিচালিত হয়। যেমন: যুব সংসদ,সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রচারাভিযান, গণিত উৎসব, পাঠাগার গঠন, পরিবেশ উন্নয়ন, বৃক্ষরোপণ,বিজ্ঞান ক্লাব, ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ ক্লাব, শতভাগ স্যানিটেশন নিশ্চিতকরণ, নিরক্ষরতা ও আর্সেনিক দূরীকরণ, স্বাস’্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম, নারী নির্যাতন তথা উত্যক্তকরণ, বাল্যবিবাহ ও যৌতুক প্রতিরোধ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও মাদক প্রতিরোধসহ ইত্যাদি।
এছাড়াও ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিভিন্ন সৃজনশীল বিষয়ে প্রতিযোগিতার আয়োজন, নারীদের প্রতি বৈষম্য অবসান ও বাল্যকাল থেকে তাদের প্রতি যত্ন নেয়া ও বিনিয়োগ বাড়ানোর লক্ষ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করতে কর্মসূচি গ্রহণ ও কন্যাশিশু দিবস উদযাপন, নিরক্ষরতা দূরীকরণে কর্মসূচী গ্রহণ এবং আত্মকর্মসংস’ানমূলক উদ্যোগ ইত্যাদি ।

এভাবেই দি হাঙ্গার প্রজেক্ট কর্তৃক পরিচালিত গণকেন্দ্রিক উন্নয়ন প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার সাংগঠনিক কাঠামোয় দেশব্যাপী সহযোগিতা করছে। এ প্রক্রিয়াকে বেগবান করতে সারা দেশে পাঁচ শতাধিক ইউনিট গঠিত হয়েছে। এ সকল ইউনিট বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ, কলেজ, স্কুল, ক্লাব,এলাকা এবং ইউনিয়নভিত্তিক। প্রতি ইউনিটে সদস্য সংখ্যা ন্যূনতম ১১ থেকে ৫০০ জন।

দৃষ্টান-মূলক অর্জন: সম্ভাবনাময় ভবিষ্যতের দিক নির্দেশনা

বাংলাদেশে জাতীয় যুব সংসদ: বাংলাদেশে জাতীয় যুব সংসদ গঠনের লক্ষ্যে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছে; এরই অংশ হিসেবে তরুণদের মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশের লক্ষ্যে নানা ধরনের প্রশিক্ষণ, কর্মশালা, বিতর্ক ও মিনি পার্লামেন্ট আয়োজন করা হয়েছে। ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার এর উদ্যোগে গত ১০ এপ্রিল ২০১০ রাজশাহীতে জাতীয় যুব সংসদের অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী জেলার ৯০ জন যুব সাংসদ এই অধিবেশনে অংশগ্রহণ করেন। রাজশাহী জেলা থেকে নির্বাচিত ৯০ জন সংসদ-সদস্য ছাড়াও সারাদেশের ৬৩ টি জেলা থেকে আসা ৭৩ জন প্রতিনিধি পর্যবেক্ষক হিসেবে অধিবেশনে উপসি’ত ছিলেন।
১০ এপ্রিল ২০১০ রাজশাহী শহরের চেম্বার এন্ড কমার্স ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় যুব সংসদের অধিবেশন। ইউএনএমসির সহযোগিতায় এবং ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশের উদ্যোগে আয়োজিত এই অধিবেশনে অতিথি হিসেবে উপসি’ত ছিলেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র জনাব এএইচএম খায়রুজ্জামান, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-এর গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার সহ অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপসি’ত ছিলেন।

এ্যাকটিভ সিটিজেনস কার্যক্রম: “বিশ্বব্যাপী সংযুক্ত, স’ানীয়ভাবে সম্পৃক্ত” এই শ্লোগানকে ধারণ করে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ এর ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ইউনিট ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহযোগিতায় ২০০৯ সালে এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং প্রকল্প গ্রহণ করে। আত্মশক্তি বিকাশ, নেতৃত্ব নির্মাণ, যোগাযোগ-দক্ষতা উন্নয়ন, সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠা, স্বেচ্ছাব্রতী আন্দোলনে উদ্বুদ্ধকরণ এবং সামাজিক উদ্যোগের জন্য প্রকল্প তৈরি, তহবিল গঠন এবং অংশীদারিত্ব ও বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্ক তৈরি করার লক্ষ্যে ব্রিটিশ কাউন্সিল-বাংলাদেশ ও দি হাঙ্গার প্রজেক্ট- বাংলাদেশ এর ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার ইউনিটের যৌথ উদ্যোগে এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিং প্রকল্পের অধীন প্রথম ও দ্বিতীয় পর্বে মোট ১৬০ টি প্রশিক্ষণ সফলভাবে সম্পন্ন হয়। প্রশিক্ষণের পর ৩৮০ টি স’ানীয় সামাজিক উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় যেগুলো এখনও চলমান। উল্লেখযোগ্য সামাজিক উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গুলো হলো :বিজ্ঞান ক্লাব, ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ ক্লাব, পাঠাগার ও বিতর্ক ক্লাব গঠন; শতভাগ স্যানিটেশন নিশ্চিতকরণ; নিরক্ষরতা ও আর্সেনিক দূরীকরণ; স্বাস’্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম; নারী নির্যাতন তথা উত্যক্তকরণ, বাল্যবিবাহ ও যৌতুক প্রতিরোধ; পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও বৃক্ষরোপণ অভিযান পরিচালনা; মাদক প্রতিরোধসহ বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিয়ে গৃহীত প্রকল্পগুলোতে স’ানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও গণমাধ্যমের প্রতিনিধিদের অন-র্ভুক্ত করার ফলে স’ানীয় জনসমাজে ইতোমধ্যেই সেগুলো ইতিবাচক প্রভাব বিস-ার করেছে। এ সকল প্রশিক্ষণে ৫৭৭৮ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। এ ছাড়া ও গনশিক্ষা কার্যক্রম বেগবান করার লক্ষ্যে সুপার স্যাপ ট্রেনিং শিরোনামে আরও ২০ টি প্রশিক্ষণের আওতায় ৮০টি সামাজিক উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গ্রহিত হয়েছে।
এ্যাকটিভ সিটিজেনস কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সারাদেশের বিভিন্ন কমিউনিটি থেকে ১৫ জন এ্যাকটিভ সিটিজেনস স্কটল্যান্ডে তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ লাভ করে এবং স্কটল্যান্ড থেকেও ১২ জন এ্যাকটিভ সিটিজেনস বাংলাদেশে আসে। ব্রিটিশ কাউন্সিল, পাকিস-ান এর আয়োজনে ১৭ জানুয়ারি- ২০ জানুয়ারি ২০১১ পাকিস-ানের ইসলামাবাদে “ইয়ূথ ইন এ্যাকশন ফর গ্লোবাল চেঞ্জ” শীর্ষক প্রোগ্রামে সারাদেশ থেকে চারজন ইয়ূথ সদস্য অংশগ্রহণের সুযোগ লাভ করে। এছাড়া এ্যাকটিভ সিটিজেনস  কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করার জন্য ২৬ অক্টোবর ২০১০ ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রধান নির্বাহী মার্টিন ডেভিডসন মংলার এ্যাকটিভ সিটিজেনস কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। ঐদিন তিনি এ্যাকটিভ সিটিজেনদের উদ্যোগে গড়ে ওঠা হাঁসি-খুশি লাইব্রেরী পরিদর্শন করেন। এছাড়া ব্রিটিশ কাউন্সিলের দক্ষিণ এশিয়ার পরিচালক স্টিভেন রোমান ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১১ আন-র্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে মানিকগঞ্জের ভাটবাউর এ স’ানীয় ইয়ূথ লিডার ও এ্যাকটিভ সিটিজেনসদের যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত ছাত্রকল্যাণ পাঠাগার ও কাউটিয়ায় গণশিক্ষা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। ২০১০ সালে ইয়ূথ লিডাররা ভিএসও-বাংলাদেশ এর ১৪টি এ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ূথ লিডার্স ট্রেনিংয়ে ফ্যাসিলিটেটর এর ভূমিকা পালন করে সুনাম অর্জন করে।

গণিত উৎসব: ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল প্রতিভা বিকাশের পাশাপাশি গণিত আন্দোলনকে তৃণমূল পর্যায়ে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য গণিত নিয়ে খেলা কর বিশ্বটাকে জয় কর এই শ্লোগান কে সামনে রেখে ২০০৫ সাল থেকে কাজ শুরু করেছে। সারা দেশে ইউনিয়ন এবং উপজেলা পর্যায়ে গণিত উৎসবের আয়োজন করে চলেছে। যার মধ্য দিয়ে গ্রাম পর্যায়ে গণিতকে ছড়িয়ে দেওয়ার স্বীকৃতি স্বরূপ ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ বিশেষ সম্মাননাও লাভ করেছে।  ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ সালে পঞ্চম জাতীয় গণিত উৎসবে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি এই স্বীকৃতির স্মারক হিসেবে ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করে।

ইয়ূথের জাতীয় সম্মেলন: দেশব্যাপী দায়বদ্ধতার মানসিকতায় উদ্বুদ্ধ হয়ে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি প্রতিবছরই ইয়ূথের একটি জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গারের জাতীয় সম্মেলন হলো সারা দেশের সকল ইউনিটের শত শত সদস্যের মত-বিনিময় আসর। এর উদ্দেশ্য হলো – বিভিন্ন ইউনিটের সফলতা ও অভিজ্ঞতা পর্যালোচনা করা এবং প্রত্যাশা নির্ধারণ করার মাধ্যমে সকলকে অনুপ্রাণিত ও ক্ষমতায়িত করা। ১৯৯৬ সাল থেকে শুরু করে সফলতার সাথে প্রতিবছর এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। প্রথম দিকে জাতীয় সম্মেলন ছোট আসরে অনুষ্ঠিত হতো। কিন’ এখন এই জাতীয় সম্মেলন হয়ে উঠেছে ছাত্র-ছাত্রীদের ভালোবাসা আর প্রাণের উৎসবে। স্বেচ্ছাসেবকদের সিদ্ধান-, ব্যবস’াপনা ও পরিকল্পনায় প্রতিবছর এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। সম্মেলনের উল্লেখযোগ্য খরচ বহন করার স্বার্থে অবদান রাখতে সদস্যরা নিজ খরচে সম্মেলনে অংশগ্রহণ করার বাইরেও প্রত্যেকেই রেজিস্ট্রেশন ফি প্রদান করে থাকে। প্রতিবছরই সম্মেলনে সফল এই সকল সদস্যদের অংশগ্রহণ ধীরে ধীরে বাড়ছে। 
৪-৫ জুন ২০১০ গণস্বাস’্য কেন্দ্র (পিএইচএ ভবন) মিলনায়তন সাভার, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয় ইয়ূথ এন্ডিং হাঙ্গার-বাংলাদেশ-এর চতুর্দশ জাতীয় সম্মেলন। দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলার স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় এক হাজার মেধাবী ও স্বেচ্ছাব্রতী সংগঠক (ছাত্র-ছাত্রী) অংশগ্রহণ করে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত শিক্ষক ও অভিভাবকগণও উপসি’ত ছিলেন।
উল্লেখ্য যে, এই সম্মেলনের উদ্দেশ্য ছিল : (ক) আত্মমর্যাদা ও আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ অর্জনের লক্ষ্যে পরিচালিত গণজাগরণের প্রচেষ্টায় ছাত্র-ছাত্রীদের নেতৃত্বে স্বেচ্ছাব্রতী বিভিন্ন উদ্যোগ ও অর্জনের গঠনমূলক পর্যালোচনা করা; (খ) গণজাগরণ থেকে অর্জিত উল্ল্ল্ল্লেখযোগ্য শিক্ষণীয় দিক চিহ্নিত ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করা এবং (গ) পরবর্তী বছরের জন্য একটি সমন্বিত প্রত্যাশা সৃষ্টি ।

এ আন্দোলনে প্রয়োজন আপনার নেতৃত্ব
এ আন্দোলনের আপনিও একজন অংশীদার। আপনার সমর্থন, সক্রিয় অংশগ্রহণ ও নেতৃত্বের উপর আন্দোলনের ভবিষ্যত নির্ভর করছে। একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে এ সামাজিক আন্দোলনে আপনার অংশগ্রহণ আপনার-আমার তথা সকলের জন্য একটি মর্যাদাপূর্ণ ভবিষ্যত নিশ্চিত করবে।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s